/ মূলপাতা / দুর্ঘটনা
টাঙ্গাইলে বৈদ্যুতিক তারে জড়িয়ে যুবকের মৃত্যু - Ekotar Kantho

টাঙ্গাইলে বৈদ্যুতিক তারে জড়িয়ে যুবকের মৃত্যু

একতার কণ্ঠঃ টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে রুবেল মিয়া (৩৫) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার (১১ সেপ্টেম্বর) দুপুরে উপজেলার দিঘলকান্দি ইউনিয়নের হামিদপুর উত্তর পাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঘাটাইল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মনিরুল ইসলাম।

নিহত রুবেল উপজেলার সালেংকা গ্রামের সাইদুর রহমান কালুর ছেলে। দীর্ঘদিন যাবত তারা হামিদপুর বসবাস করেন।

নিহতের পরিবার ও স্থানীয়রা জানায়, রুবেল বাড়ির পাশেই তাদের নিজস্ব রাইস মিলের গুদাম ঘরে ব্যাটারি চার্জ দেওয়ার জন্য একটি অটো গাড়ির গ্যারেজ তৈরি করেন। সোমবার দুপুরের দিকে গ্যারেজে বৈদ্যুতিক কাজ করার সময় তারে জড়িয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন তিনি। এ সময় ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

এ বিষয়ে ঘাটাইল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মনিরুল ইসলাম জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। স্বজনদের আবেদনের ভিত্তিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই নিহতের মরদেহ দাফনের অনুমতি দেয়া হয়েছে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ১২. সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৩:৩৭:এএম ৯ মাস আগে
টাঙ্গাইলে ভাইয়ের মৃত্যুর খবর শুনে মারা গেলেন বড় ভাইও - Ekotar Kantho

টাঙ্গাইলে ভাইয়ের মৃত্যুর খবর শুনে মারা গেলেন বড় ভাইও

একতার কণ্ঠঃ টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর শহীদ জিয়া মহিলা কলেজের শিক্ষক নূরুল আমিন (৫৮) রবিবার (১০ সেপ্টেম্বর) সকালে মৃত্যুবরণ করেন। তাঁর মৃত্যুর খবর শুনে বড় ভাই আবুল হোসেন (৭০) সন্ধ্যায় হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। তিনি সরিষাবাড়ীর তারাকান্দি যমুনা ফার্টিলাইজার কোম্পানির কর্মকর্তা ছিলেন।

শহীদ জিয়া মহিলা কলেজের ভারপ্রাপ্ত প্রিন্সিপাল মো. আবু সাদত বিপলু বলেন, জীববিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক নূরুল আমিন ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের উচ্চ মাধ্যমিকের জীববিজ্ঞান পরীক্ষার প্রধান পরীক্ষক নিযুক্ত হন। এ বিষয়ে প্রশিক্ষণের জন্য শুক্রবার (৮ সেপ্টেম্বর) সপরিবারে তিনি ঢাকা যান। রাতে বড় ভাই আবুল হোসেনের বাসায় ছিলেন। শনিবার (৯ সেপ্টেম্বর) সকালে শিক্ষা বোর্ডে যাওয়ার পথে গুলশান-২ এলাকায় স্ট্রোক করেন। পরে পথচারীরা হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

এদিকে তাঁর বড় ভাই আবুল হোসেন অসুস্থ থাকায় মৃত্যুর সংবাদ জানানো হয়নি। পরে সন্ধ্যায় ছোট ভাইয়ের মৃত্যুর সংবাদ শুনে তিনিও স্ট্রোক করেন। পরে গুলশানের একটি হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকেও মৃত ঘোষণা করেন।

দুই ভাইয়ের মৃত্যুতে পরিবার, শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসীর মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। রবিবার এশার নামাজের পর নূরুল আমিনকে এবং সোমবার (১১ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টায় তাঁর বড় ভাই আবুল হোসেনকে ভূঞাপুরের চর নিকলা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জানাজা শেষে নিজ গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

সর্বশেষ আপডেটঃ ১২. সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০২:০৫:এএম ৯ মাস আগে
টাঙ্গাইলে শ্যালিকাদের নিয়ে পুকুরে গোসলে নেমে লাশ হলেন নতুন জামাই - Ekotar Kantho

টাঙ্গাইলে শ্যালিকাদের নিয়ে পুকুরে গোসলে নেমে লাশ হলেন নতুন জামাই

একতার কণ্ঠঃ টাঙ্গাইলে বিয়ের দুই দিনের মাথায় শ্যালিকাদের নিয়ে শ্বশুর বাড়ির পুকুরে গোসল করতে নেমে জাহাঙ্গীর হোসেন(২৫) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। রবিবার (১০ সেপ্টেম্বর)দুপুরে মধুপুর উপজেলার মহিষমারা ইউনিয়নের চাতারবাইদ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

মৃত জাহাঙ্গীর ওই ইউনিয়নের আতেক্কার চালা গ্রামের তোফাজ্জল হোসেনের ছেলে।

সোমবার (১১ সেপ্টেম্ব) দুপুরে মহিষমারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, শুক্রবার জাহঙ্গীরের সঙ্গে চাতারবাইদ গ্রামের সেলিম উদ্দিনের মেয়ের বিয়ে হয়। এরপর রবিবার সকালে স্ত্রীকে নিয়ে শ্বশুরবাড়ি ‘ফিরানী’ তে যান জাহাঙ্গীর। মেজবানি শেষে ওইদিন বিকেলেই আবার বাড়ি ফেরার কথা ছিল জাহঙ্গীরের। দুপুরে শ্বশুরবাড়ির পাশের পুকুরে শ্যালক-শ্যালিকাদের সঙ্গে গোসলে নামেন জাহাঙ্গীর। হঠাৎ পুকুরে ডুবে যান তিনি। এরপর ভেসে না উঠায় ডাকাডাকি শুরু করে শ্যালক-শ্যালিকারা। এ সময় আশপাশের সবাই এগিয়ে এসে পানিতে নেমে তাকে খুঁজতে শুরু করেন। প্রায় আধা ঘন্টা চেষ্টার পর জাহাঙ্গীরের নিথর দেহ উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। এ সময় দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

এ ব্যাপারে মধুপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোল্লা আজিজুর রহমান জানান, পুকুরে ডুবে জাহাঙ্গীরের মৃত্যু হয়। ধারনা করা হচ্ছে সাঁতার না জানায় মৃত্যুর ঘটনাটি ঘটতে পারে।

তিনি আরও জানান,মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের হয়েছে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ১১. সেপ্টেম্বর ২০২৩ ১১:০৯:পিএম ৯ মাস আগে
টাঙ্গাইলে ইঁদুর মারার বিষ পানে ২ শিশু ভাই-বোনের মৃত্যু - Ekotar Kantho

টাঙ্গাইলে ইঁদুর মারার বিষ পানে ২ শিশু ভাই-বোনের মৃত্যু

একতার কণ্ঠঃ ঘরে থাকা ইঁদুর মারার বিষ পান করে টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে দুই শিশু ভাই-বোনের মৃত্যু হয়েছে। রবিবার (১০ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়নের শালিয়াবহ গ্রামে এই মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে।

মৃত দুই শিশু হলেন, ওই গ্রামের শাহ-আলম মিয়ার ছেলে তাওহীদ মিয়া (৪) ও মেয়ে তানজিলা আক্তার (২)।

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, রবিবার বিকেলে পারিবারিক কাজে শাহ-আলমের স্ত্রী ব্যস্ত ছিলেন। এমন সময় ঘরে থাকা ইঁদুর মারার বিষ পান করে ফেলে তাওহীদ ও তানজিলা। পরিবারের সদস্যরা বিষয়টি টের পেয়ে তাদের উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় পেঁচারআটা বাজারে নিয়ে যায়। সেখান থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ওই দুই শিশুকে মৃত ঘোষণা করেন।

শাহ-আলম বলেন, আমি কাজে বাড়ির বাইরে ছিলাম। এসময় তাওহীদের মা পারিবারিককাজে ব্যস্ত ছিল। এর ফাঁকে ছেলে-মেয়েরা ঘরে রাখা ঈদুরের বিষ খেয়ে ফেলে। পরে হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

রসুলপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী মাহবুব উল হক মাছুদ বলেন, ঘরে থাকা বিষ খেয়ে তাদের মৃত্যু হয়েছে বলে জেনেছি। পুলিশ ঘটনাস্থলে রয়েছে। তারা তদন্ত করছে।

ঘাটাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ লোকমান হোসেন বলেন, শিশু দুটি কৃষক পরিবারের সন্তান। তাদের মা পারিবারিক কাজে ব্যস্ত ছিলনে। ধারণা করা হচ্ছে ঘরে রাখা কলা পাকানোর রাসায়নিক বা ইঁদুরের বিষ পান করে ফেলে শিশুরা। এক পর্যায়ে তাদের মৃত্যু হয়। বর্তমানে লাশ দুটি তাদের বাড়িতে রয়েছে।

ঘাটাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে দায়িত্বরত চিকিৎসক ডা. মারুফ বলেন, মৃত অবস্থায় তাদের হাসপাতালে আনা হয়েছিল। মৃত অবস্থায় আনার কারণে প্রাথমিকভাবে বিষের নমুনা পাওয়া যায়নি। তবে পরিবারের লোকজন বলছিল ইঁদুরের বিষ খেয়ে তাদের মৃত্যু হয়েছে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ১১. সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৪:৩৫:এএম ৯ মাস আগে
টাঙ্গাইলে ট্রাকসহ ভেঙে পড়েছে বেইলি সেতু - Ekotar Kantho

টাঙ্গাইলে ট্রাকসহ ভেঙে পড়েছে বেইলি সেতু

একতার কণ্ঠঃ টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে বালুবাহী ট্রাক নিয়ে একটি বেইলি ব্রিজ ভেঙ্গে পড়েছে। এসময় ট্রাকটি ব্রিজ থেকে পড়ে পানিতে তলিয়ে যায়।

শনিবার (৯ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাত পৌনে একটার দিকে টাঙ্গাইল-দেলদুয়ার আঞ্চলিক সড়কের সহেড়াতৈল-দুল্যা সংযোগস্থলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এসময় আহত হয় চালকসহ ট্রাকের চার আরোহী। তাৎক্ষণিকভাবে আহতদের পরিচয় পাওয়া যায়নি।

স্থানীয়রা জানান, শনিবার মধ্যরাতে টাঙ্গাইল থেকে দেলদুয়ারের দিকে একটি বালুবাহী ট্রাক যাচ্ছিল। ট্রাকটি দক্ষিণ প্রান্তে পৌঁছালে ব্রিজটি ভেঙে পড়ে। এসময় বিকট শব্দে ট্রাকটি পানিতে পড়ে যায়। উত্তর পাশে ব্রিজের অংশ সড়ক থেকে পূর্ব দিকে সরে গেছে। দক্ষিণ অংশের রেলিং ভেঙে যায়।

খবর পেয়ে দেলদুয়ার থানা পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করে। তবে এখন পর্যন্ত উদ্ধার কাজ শুরু হয়নি।

সেহরাতৈল গ্রামের আরশেদ আলী জানান, ব্রিজটি ঝুকিপূর্ণ। দুপাশে সতর্ক সংকেত দিয়ে সাইনবোর্ড টাঙানো রয়েছে। তারপরও অতিরিক্ত মালবোঝাই যানবাহন অহরহ চলাচল করে। গত শনিবার রাতে বালু বোঝাই ট্রাকসহ ব্রিজটি ভেঙে পড়ে।

ব্রিজটি ভেঙ্গে যাওয়ায় টাঙ্গাইল জেলা শহরের সাথে দেলদুয়ার উপজেলার যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন রয়েছে। বন্ধ হয়ে গেছে সব ধরনের যানবাহন চলাচল। নৌকা দিয়া পারাপারা হচ্ছে সাধারণ মানুষ।

দেলদুয়ার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাছির উদ্দিন মৃধা বলেন, ঘটনা শোনার পর আমি রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। চারজন আহত হয়েছে। তবে এ ঘটনায় কারও মৃত্যু হয়নি। বিষয়টি সম্পর্কে যথাযথ কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

টাঙ্গাইল সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আলিউল হোসেন জানান, ঘটনাটি শুনেছি। ব্রিজটি সংস্কারের জন্য যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। শনিবার থেকেই ব্রিজ সংস্কারের কাজ শুরু করা হবে। খুব দ্রুত সময়ে মেরামত করে যানবাহন চলাচলের জন্য ব্রিজটি খুলে দেওয়া হবে।

এদিকে স্থানীয়দের দাবি, এ পর্যন্ত ব্রিজটি চারবার ভেঙ্গে পড়ল। কাঠের সেতু থাকায় অবস্থায় দুবার। বেইলি ব্রিজ হওয়ার পর দুবার। ২০১৭ সালের ১৭ জুলাই সার বাহী একটি ট্রাক নিয়ে ব্রিজটি ভেঙ্গে পড়েছিল। ব্রিজটি সাময়িক মেরামতের পাশাপাশি নতুন করে ব্রিজ নির্মানের দাবী জানান এলাকাবাসী।

সর্বশেষ আপডেটঃ ১০. সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০১:০৪:এএম ৯ মাস আগে
টাঙ্গাইলে নদীতে নিখোঁজের ১৩ ঘন্টা পর যুবকের মরদেহ উদ্ধার - Ekotar Kantho

টাঙ্গাইলে নদীতে নিখোঁজের ১৩ ঘন্টা পর যুবকের মরদেহ উদ্ধার

একতার কণ্ঠঃ টাঙ্গাইলে পিকনিকের নৌকা থেকে পড়ে নিখোঁজের ১৩ ঘন্টা পর শাকিল(১৯) নামের এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরী দল।

সোমবার (৪ সেপ্টেম্বর) সকালে কালিহাতী উপজেলার নাগবাড়ী ইউনিয়নের খিলগাতী এলাকার আওরা নদী থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

নিহত  শাকিল মিয়া উপজেলার বল্লা ইউনিয়নের রামপুর কুকরাইল গ্রামের আব্দুর রউফের ছেলে।

স্থানীয়রা জানায়, শাকিলসহ প্রায় ২৫ জন বন্ধু মিলে রবিবার (৩ সেপ্টেম্বর) সকালে উপজেলার রামপুর থেকে নৌকা যোগে পাশের সখিপুর উপজেলার বহেড়াতৈল বিলে নৌকা ভ্রমণে যায়। সেখান থেকে সন্ধ্যায় রওনা হয়ে কালিহাতী উপজেলার নাগবাড়ী ইউনিয়নের খিলগাতী এলাকায় পৌঁছলে রাত ৮ টার দিকে হঠাৎ নৌকা থেকে শাকিল পড়ে যায়। পরে বন্ধুরা অনেক খোঁজাখুঁজি করেও না পাওয়ায় ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেয়। সোমবার সকালে টাঙ্গাইল থেকে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরী দল এসে সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে খিলগাতী এলাকার আওরা নদী থেকে শাকিলের মরদেহ উদ্ধার করে।

এ প্রসঙ্গে টাঙ্গাইল ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের সহকারী পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) আলাউদ্দিন জানান, রবিবার বিষয়টি জানতে পারি। পরে সোমবার সকালে আমাদের ডুবুরি দল গিয়ে উদ্ধার কার্যক্রম শুরু করে। সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

এ বিষয়ে কালিহাতী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ কামরুল ফারুক জানান, নৌ পুলিশসহ আমাদের থানা পুলিশ উদ্ধার কার্যক্রম পরিচালনা করেছে। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ০৪. সেপ্টেম্বর ২০২৩ ১১:৩৭:পিএম ১০ মাস আগে
টাঙ্গাইলে পুকুরে ডুবে প্রাণ হারালো খালা-ভাগ্নি - Ekotar Kantho

টাঙ্গাইলে পুকুরে ডুবে প্রাণ হারালো খালা-ভাগ্নি

একতার কণ্ঠঃ টাঙ্গাইলে পুকুরের পানিতে গোসল করতে নেমে খালা-ভাগ্নির মৃত্যু হয়েছে। শনিবার (২ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে কালিহাতী উপজেলার নারান্দিয়া ইউনিয়নের দেউপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন-ওই গ্রামের মানিক মিয়ার মেয়ে জান্নাতী (১১) এবং একই ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামের সাইদুল ইসলামের মেয়ে সাদিয়া ইসলাম আক্তার জীম (৮)। জান্নাতী ও জীম সম্পর্কে খালা-ভাগ্নি।

জীমের মামা জাকা‌রিয়া ব‌লেন, জান্নাতি ও জীম সকা‌লে বা‌ড়ির পা‌শে খেলাধুলা শে‌ষে গোসল করার জন‌্য পুকু‌রে নেমেছিল। পুকুরে নেমে তারা ডু‌বে যায়। এসময় তা‌দের পা‌নি‌তে পড়ার খবর দেয় আরেক শিশু। পরে স্থানীয়দের সহযোগীতায় পুকু‌রের পা‌নি‌তে নে‌মে উদ্ধার করে পার্শ্ববর্তী ভূঞাপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করে।

ভূঞাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আহসান উল্লাহ্ জানান, দুই শিশুকে পুুকুর থেকে উদ্ধার করে ভূঞাপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স হাসপাতালে নিয়ে আসে স্বজনরা। পরে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করে। মরদেহের সুরতাহাল শেষে কালিহাতী থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

এ বিষয়ে কালিহাতী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ কামরুল ফারুক জানান, আইনি প্রক্রিয়া শেষে মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ০৩. সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০২:১২:এএম ১০ মাস আগে
টাঙ্গাইলে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে শ্রমিকের মৃত্যু - Ekotar Kantho

টাঙ্গাইলে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে শ্রমিকের মৃত্যু

একতার কণ্ঠঃ টাঙ্গাইলের সখীপুরে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মো: তারেক মিয়া (২৮) নামে এক টিউবয়েল শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে।

রবিবার (২৭ আগস্ট) রাতে উপজেলার দেবরাজ এলাকায় মোটরের কাজ করতে গিয়ে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত তারেক ওই এলাকার শাহজাহান মিয়ার ছেলে।

নিহতের পরিবার জানায়, নষ্ট হওয়া মোটরের পাইপ তুলতে গিয়ে বিদ্যুতের ঝুলন্ত তারের সাথে ওই পাইপের সংস্পর্শ ঘটে। স্বজনরা তাকে উদ্ধারের চেষ্টা করলেও ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

সখীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: রেজাউল করিম জানান, কোনো পক্ষের অভিযোগ না থাকায় পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ২৯. অগাস্ট ২০২৩ ০৩:০৯:এএম ১০ মাস আগে
টাঙ্গাইলে পুকুরে গোসল করতে নেমে শিশুর মৃত্যু - Ekotar Kantho

টাঙ্গাইলে পুকুরে গোসল করতে নেমে শিশুর মৃত্যু

একতার কণ্ঠঃ টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে বাড়ির পাশের পুকুরে গোসল করতে গিয়ে আরমান (৮) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার (২৫ আগস্ট) সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে উপজেলার নিকরাইল ইউনিয়নের সারপলশিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত আরমান উপজেলার নিকরাইল ইউনিয়নের সারপলশিয়া গ্রামের মো.বাদশা মিয়ার ছেলে।

পুলিশ ও স্বজনরা জানায়, শুক্রবার সকালে শিশু আরমান বাড়ির পাশে একটি পুকুরে গোসল করতে যায়। গোসল শেষে বাড়ি না ফেরায় বাবা-মাসহ প্রতিবেশীরা খুঁজতে থাকে। অনেক খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে পুকুরে নেমে তল্লাশি চালায়। ঘন্ট্যাবাপী পুকুরে তল্লাশি চালিয়ে পুকুর থেকে আরমানের মৃতদেহ উদ্ধার করে।

ভূঞাপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আরফান আলী জানান, পুকুরে গোসল করতে গিয়ে পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। আইনি প্রক্রিয়া শেষে শিশুটির মৃতদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ২৬. অগাস্ট ২০২৩ ০১:৩১:এএম ১০ মাস আগে
টাঙ্গাইলে রেল লাইনে মাথা দিয়ে যুবকের আত্মহত্যা - Ekotar Kantho

টাঙ্গাইলে রেল লাইনে মাথা দিয়ে যুবকের আত্মহত্যা

একতার কণ্ঠঃ টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে রেল লাইনে মাথা দিয়ে মহসিন রাব্বী (২০) নামে এক যুবককের আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে।

সোমবার (২১ আগস্ট) দুপুরে জয়দেবপুর-বঙ্গবন্ধু সেতু রেল লাইনের কালিহাতী উপজেলার এলেঙ্গা পৌরসভার রাজাবাড়ী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত মহসিন রাব্বী উপজেলার বাংড়া ইউনিয়নের বড় ইছাপুর গ্রামের লুৎফর রহমানের ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে রাজাবাড়ী রেল ক্রসিংয়ের গেটম্যান শফিকুল ইসলাম জানান, রেল ক্রসিং থেকে একটু দূরে রেললাইনের ওপর বসেছিলেন মহসিন রাব্বী। এ সময় ঢাকাগামী আন্তঃনগর সিল্কসিটি এক্সপ্রেস ট্রেনটি হুইসেল দিচ্ছিল। মহসিন রাব্বী হুইসেল উপেক্ষা করে ট্রেনের নিচে মাথা পেতে দেয়। এতে তার দেহ থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

বাংড়া ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম শফি জানান, রাব্বীর মা কিছু দিন আগে মারা গেছেন। তারপর থেকে রাব্বী কিছুটা মানসিক ভারসাম্যহীন ছিল।

টাঙ্গাইল রেলওয়ে পুলিশের ইনচার্জ আলী আকবর জানান, খবর পেয়ে পরিবারের লোকজন এসে রাব্বীর লাশ শনাক্ত করে। লাশ উদ্ধার করে টাঙ্গাইল রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়িতে নেওয়া হয়েছে।

তিনি আরও জানান, ময়নাতদন্তের পর লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ২২. অগাস্ট ২০২৩ ০৩:৫৯:এএম ১০ মাস আগে
টাঙ্গাইলে বংশাই নদীতে পড়ে ৩ বছরের শিশু নিখোঁজ - Ekotar Kantho

টাঙ্গাইলে বংশাই নদীতে পড়ে ৩ বছরের শিশু নিখোঁজ

একতার কণ্ঠঃ টাঙ্গাইলের মধুপুরে বংশাই নদীতে পড়ে সাদিকুল ইসলাম(৩) নামের এক শিশু নিখোঁজ হয়েছে। সোমবার (২১ আগস্ট) সকালে মধুপুর পৌর এলাকার দামপাড়ায় এই ঘটনা ঘটে।

নিখোঁজ শিশুটি দামপাড়া গ্রামের আব্দুল কাদের ছেলে।

নিখোঁজ শিশুর পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, শিশুটির মা প্রতিবন্ধী। সোমবার সকালে প্রতিবন্ধী মা শিশুটিকে তার কাছে রেখে রান্না করছিলেন। রান্না শেষে ছেলেকে খুঁজে না পেয়ে বিষয়টি স্থানীয়দের জানায়। স্থানীয়রা চারদিকে খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে ফায়ার সার্ভিস কে খবর দেয়। পরে টাঙ্গাইল থেকে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল এসে বংশাই নদীতে খোঁজাখুজি করেও শিশুটির কোনো সন্ধান পায়নি।

স্থানীয়রা বলছে, শিশুটি বাড়ির পাশের বংশাই নদীর কিনারে প্রায়ই চলে আসে। ধারণা করা হচ্ছে ছেলেটি নদীতে পড়ে নিখোঁজ হয়েছে।

মধুপুর ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার হেমাইল কবির জানান, টাঙ্গাইল থেকে ডুবুরি দল এসে নদীতে খোজাখুজি করে শিশুটির সন্ধান না পেয়ে উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত ঘোষনা করেন।

সর্বশেষ আপডেটঃ ২২. অগাস্ট ২০২৩ ০২:৫৪:এএম ১০ মাস আগে
টাঙ্গাইলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সামনের গাড়িকে ধাক্কা, ট্রাকের হেলপার নিহত - Ekotar Kantho

টাঙ্গাইলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সামনের গাড়িকে ধাক্কা, ট্রাকের হেলপার নিহত

একতার কণ্ঠঃ টাঙ্গাইলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মালবাহী একটি ট্রাক অজ্ঞাত গাড়ির সঙ্গে ধাক্কা লেগে মো. জাকির হোসেন (৩৮) নামে এক ট্রাকের হেলপার নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় ট্রাক চালকসহ অপর এক হেলপার আহত হয়েছে।

শুক্রবার (১৮ আগস্ট) ভোর রাতে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের টাঙ্গাইল শহর বাইপাসের আশেকপুর নামক এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত জাকির হোসেন জেলার ভূঞাপুর উপজেলার অলোয়া ইউনিয়নের ভারই গ্রামের মনছের আলীর ছেলে।
আহত ট্রাক চালক ও হেলপার এ দুইজনের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি।

এলেঙ্গা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (ওসি) জাহিদ হাসান, ভোরে মালবাহী একটি ট্রাক ঢাকা যাচ্ছিল। সেই ট্রাকে চালকসহ দুইজন হেলপার ছিলেন। ট্রাকটি আশেকপুর এলাকায় পৌঁছলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সামনে থাকা অপর একটি অজ্ঞাত গাড়িকে ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলে একজনের মৃত্যু হয়। আহত হয় চালকসহ আরও এক হেলপার।

তিনি আরও জানান, খবর পেয়ে টাঙ্গাইল ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা নিহত ও আহতদের উদ্ধার করে। পরে ট্রাক চালক পালিয়ে যায়। আহত অপর হেলপারকে চিকিৎসার জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়। নিহতের মরদেহ টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। আইনি প্রক্রিয়া শেষে মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ১৮. অগাস্ট ২০২৩ ০৭:০০:পিএম ১০ মাস আগে
কপিরাইট © ২০২২ একতার কণ্ঠ এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।