/ মূলপাতা / দেলদুয়ার
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারণে দেশের কোন মানুষ খাদ্য সংকটে নেই: বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী - Ekotar Kantho

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারণে দেশের কোন মানুষ খাদ্য সংকটে নেই: বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী

একতার কণ্ঠঃ বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু এমপি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারণে দেশের কোন মানুষ খাদ্য সংকটে নেই। সরকার টিসিবি’র মাধ্যমে সারাদেশে এক কোটি নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে সল্প মূল্যে খাদ্য পণ্য বিক্রি করছে। এছাড়াও সরকারের খাদ্য বান্ধব কর্মসূচির আওতায় খাদ্য পণ্য সরবরাহ করা হচ্ছে। এছাড়া বাজারেও কোন পণ্যের সরবরাহে ঘাটতি নেই।

বৃহস্পতিবার (২১ মার্চ) দুপুরে টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে প্রাথমিক বিদ্যালয় সমূহে কাব স্কাউটিং সম্প্রসারণ (৪র্থ) প্রকল্পের অর্থায়নে ৭০টি বিদ্যালয়ের মাঝে ড্রামসেট বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা চেষ্টা করছি বর্তমান বাজার ব্যবস্থাকে ঢেলে সাজানোর। একদিকে যেমন আমরা পণ্যের সরবরাহ বাড়াবো এতে দেশীয় উৎপাদন বাড়াবে। তেমনি যে শস্য আমদানি করতে হয় সেগুলোরো উৎপাদন বাড়াবো।যতক্ষণ পর্যন্ত আমরা স্বয়ংসম্পূর্ণ না হতে পারতেছি ডাল ও তেল আমরা আমদানি করি এটারও টিসিবি’র মাধ্যমে আমদানি করায় ন্যায্য মূল্যে দিতে পারছি। সাধারণ মানুষ ও যারা শিক্ষক আছে তারাও যেন ভর্তুকি মূল্যে না, ন্যায্য মূল্যে কিনতে পারে। সেজন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমরা ব্যবস্থা করবো। আমাদের সেই কার্যক্রম চলমান রয়েছে। কৃষি পণ্য যেন কৃষক সমবায়ের মাধ্যমে সরাসরি ঢাকায় বাজারজাত করতে পারে সেই ব্যাপারে একটা কর্পোরেট তৈরি করে নিতে আমরা পরিবহনের ব্যবস্থা করে নিবো। যাতে তারা মধ্যস্বত্বার মধ্যে না পরে সরাসরি অধিক দামে বিক্রি করতে পারে। প্রধানমন্ত্রী আমাদের সু-স্পষ্ট নির্দেশ দিয়েছেন আমরা যে প্রকল্পগুলো হাতে নেবো তা যেন জনকল্যাণে হয়। আমাদের লক্ষ্য একটাই, আমরা যে কাজ গুলো করবো তা যেন জনস্বার্থে হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শাকিলা পারভীন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাহমুদুল হাসান, ভাইস চেয়ারম্যান এস.এম এহসানুল হক সুমন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফজলুল হক, সাধারণ সম্পাদক এম. শিবলী সাদিক প্রমুখ।

সর্বশেষ আপডেটঃ ২২. মার্চ ২০২৪ ০২:০৮:এএম ৩ সপ্তাহ আগে
বাজারে কোনো মধ্যস্বত্বভোগী রাখা হবে না: বানিজ্য প্রতিমন্ত্রী - Ekotar Kantho

বাজারে কোনো মধ্যস্বত্বভোগী রাখা হবে না: বানিজ্য প্রতিমন্ত্রী

একতার কণ্ঠঃ বানিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু এমপি বলেছেন, উৎপাদক থেকে পাইকারি ও খুচরা ব্যবসায়ীদের জন্য অ্যাপস দেওয়া হচ্ছে। কোন মধ্যস্বত্ব ভোগী রাখা হবেনা। যাতে করে সাধারণ ক্রেতারা হয়রানি না হয়। কে মাল হোলসেল করলো আর কে কিনলো, শিগগিরই এ জন্য অ্যাপস দেওয়া হবে ।

মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) দুপুরে মন্ত্রী টাঙ্গাইল শহরের সবচেয়ে বড় পাইকারি বাজার ‘পার্ক বাজারে’ নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের মনিটরিং শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী আরও বলেন, আমরা সারাদেশে যে মূল্য নির্ধারণ করে দিয়েছি, সে অনুযায়ী বাজারের ব্যবসায়ীরা বিক্রি করছে। কয়েকটা জায়গায় কম মূল্যও বিক্রি করা হচ্ছে। চিনি ১৪০ টাকার জায়গায় ১৩৮ টাকাও বিক্রি করছে। তৈলও আমরা ১৬৩ টাকা নির্ধারণ করে দিয়েছি। কিন্তু খুচরা তারা ১৫৮ টাকা বিক্রি করছে। রমজান মাস উপলক্ষে সব কিছুর ঘাটতি থাকার কথা থাকলেও এখন কিন্তু বাজারে কোন নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের ঘাটতি নাই। রমজানে বাজারে পর্যাপ্ত পরিমানে পণ্যের সরবরাহ রয়েছে। লেবুসহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস সব কিছুই বাজারে পর্যাপ্ত পরিমানে রয়েছে ৷ টাঙ্গাইলে লোকাল প্রশাসন যথাযথভাবে বাজার নিয়ন্ত্রণ করতে পেরেছে ৷

তিনি বলেন, আমাদের কাজ হলো সাশ্রয়ী মূল্যে সাধারণ মানুষকে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের সরবরাহ নিশ্চিত করা ৷

এসময় উপস্থিত ছিলেন টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক কায়ছারুল ইসলাম, পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার, টাঙ্গাইল পৌর মেয়র এসএম সিরাজুল হক আলমগীর, দেলদুয়ার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাহমুদুল হাসান মারুফসহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাবৃদন্দ।

সর্বশেষ আপডেটঃ ২০. মার্চ ২০২৪ ০১:৩৮:এএম ৩ সপ্তাহ আগে
টাঙ্গাইলে প্রধান শিক্ষকের অপসারণের দাবিতে ফুসে উঠেছে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা - Ekotar Kantho

টাঙ্গাইলে প্রধান শিক্ষকের অপসারণের দাবিতে ফুসে উঠেছে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা

একতার কণ্ঠঃ টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারের চকতৈল আলহাজ্ব কাজী আব্দুস ছালাম উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আবুল হোসেনের অপসারণ ও ম্যানেজিং কমিটি গঠনের দাবিতে ফুঁসে উঠেছে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।

সোমবার (৪ মার্চ) দুপুরে বিদ্যালয় মাঠে ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন শেষে সংবাদ সম্মেলন করা হয়। মানববন্ধনে তিন শতাধিক শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা উপস্থিত ছিলেন।

একাধিক শিক্ষার্থীর অভিযোগ, প্রধান শিক্ষক আব্দুস ছালাম যোগদানের পর থেকে অনিয়মিত বিদ্যালয়ে আসেন। তিনি কোন শ্রেণীর ক্লাশ নেননা। এছাড়াও তিনি যোগদানের পর বিদ্যালয়ে কোন প্রকার ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করেননি। এছাড়াও বিদ্যালয়ের বেতন ও অন্যান্য ফি নেওয়া হলেও তার নির্দেশে কোন রশিদ দেওয়া হয় না। বিভিন্ন জাতীয় অনুষ্ঠানেও তিনি উপস্থিত থাকেন না। তাই তার অপসারণের দাবি করেন শিক্ষার্থীরা।

সংবাদ সম্মেলনে বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী শফিকুল হক জুয়েল বলেন, এই বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করতে আমাদের পরিবার ও এলাকাবাসীর ভূমিকা আছে। প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ে যোগদানের পর থেকে তার বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারিতা, আর্থিক অনিয়ম, অসৈৗজন্যমূলক আচরণসহ নানা অভিযোগ উঠেছে। এছাড়াও তার কারনে বিদ্যালয়ে কোন ম্যানেজিং কমিটি গঠন করা সম্ভব হচ্ছে না। এতে বিদ্যালয়ে তেমন উন্নয়ন করা সম্ভব হচ্ছে না। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসন, জেলা শিক্ষা অফিসারসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। তাই প্রধান শিক্ষককে অপসারণসহ ম্যানেজিং কমিটির দাবি জানাচ্ছি।

প্রধান শিক্ষক আব্দুস ছালাম বলেন, একটি পক্ষ আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য ছড়াচ্ছে। আমার বিরুদ্ধে সকল অভিযোগ মিথ্যা।

সর্বশেষ আপডেটঃ ০৫. মার্চ ২০২৪ ০১:৩২:এএম ১ মাস আগে
শপথ নিলেন টাঙ্গাইলের সংরক্ষিত নারী আসনের ৩ এমপি - Ekotar Kantho

শপথ নিলেন টাঙ্গাইলের সংরক্ষিত নারী আসনের ৩ এমপি

একতার কণ্ঠঃ শপথ গ্রহণ করলেন টাঙ্গাইলের সংরক্ষিত নারী আসনের ৩ এমপি। বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) বিকেল সাড়ে ৩টায় সংসদ ভবনের শপথ কক্ষে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী তাদের শপথ বাক্য পাঠ করান।

তারা হলেন, সাবেক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট তারানা হালিম, বর্তমান সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি অপরাজিতা হক ও শামসুন্নাহার চাঁপা।

প্রসঙ্গত, সংরক্ষিত নারী আসনের দায়িত্বপ্রাপ্ত রিটার্নিং কর্মকর্তা (যুগ্ম সচিব) মুনিরুজ্জামান তালুকদার গত ২৫ ফেব্রুয়ারি নির্বাচনী আইনের ১২ ধারা অনুযায়ী, বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৫০ জন প্রার্থীকে নির্বাচিত ঘোষণা করেন।

নির্বাচনের বিধি অনুযায়ী, সরাসরি ভোটে জয়ী দলগুলোর আসন সংখ্যার অনুপাতে নারী আসন বণ্টন করা হয়।

জোট শরিক ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের সমর্থনে ৪৮টি সংরক্ষিত নারী আসনে প্রার্থী মনোনয়ন দেয় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। বিরোধী দল জাতীয় পার্টি মনোনয়ন দিয়েছিল ২টি আসনে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ২৯. ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ০৩:০০:এএম ১ মাস আগে
টাঙ্গাইল শাড়ির উৎস ও বিবর্তন - Ekotar Kantho

টাঙ্গাইল শাড়ির উৎস ও বিবর্তন

একতার কণ্ঠঃ টাঙ্গাইল শাড়ির প্রাথমিক খ্যাতি এর সূক্ষ্ম বুনট ও মিহি বস্ত্রের কারণে । এজন্য সবচেয়ে বেশি কৃতিত্ব দাবি করতে পারে বসাক তাঁতিরা। টাঙ্গাইলের বসাক তাঁতিরা আসলে ঢাকা থেকে দেশান্তরী হওয়া তাঁতি। তাদের মধ্যে প্রচলিত কিংবদন্তি অনুসারে তারা ঢাকা—মূলত ধামরাই ও চৌহাট নামক স্থান থেকে টাঙ্গাইলে এসে নিবাস গড়ে তুলেছিল। এ কথার সমর্থন মেলে বিশ শতকের প্রথমার্ধে ঢাকার বিশিষ্ট নাগরিক হাকিম হাবিবুর রহমানের প্রদত্ত বিবরণ থেকেও। তিনি সূক্ষ্ম কাপড় উৎপাদনের সঙ্গে এর পৃষ্ঠপোষকের ভূমিকার কথা উল্লেখ করে লিখেছেন,

…কাগমারি পরগণা, যা পশ্চিম ময়মনসিংহের টাংগাইল মহাকুমার প্রসিদ্ধ জায়গা, সূক্ষ্ম কাপড় তৈরির ব্যাপারে প্রসিদ্ধি লাভ করে। এখানে এটা বলা অপ্রাসঙ্গিক হবে না যে ঢাকা শহর থেকে ছয় মাইল পশ্চিমে তুরাগ নামে এক নদী প্রবাহিত রয়েছে, যা ময়মনসিংহ জেলার আলপসিং পরগণার যমুনা নদী থেকে উৎপন্ন হয়েছে এবং ঢাকার আটীর সামনে বুড়িগঙ্গায় এসে মিলিত হয়েছে। এই নদীর বিশেষ বৈশিষ্ট্য এই যে এর তীর বরাবর বাংলার বড় বড় জমিদার, মুসলিম নেতাদের এবং কিছু হিন্দু ধনী পরিবারের অধিবাস রয়েছে। কাশিমপুরের রায়সাহেবরা, তালেবাবাদের সিদ্দিকী সাহেবগণ, সফরতলীর খান সাহেবরা (সম্ভবত শ্রীফলতলী), পাক আল্লাহ (পাকুল্লা) এবং দেলদুয়ারের সৈয়দ ও গযনবী বংশীয়রা, করটীয়ার পন্নীরা, যারা ইউসুফযায়ী পাঠানদের একটা শাখা, সন্তোষের রাজা সাহেবরা, সকলেরই এই নদীর তীরে বসবাস। এঁরা ছাড়াও কিছু সম্ভ্রান্তজন ছিলেন যাঁরা নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছেন। এঁদের পৃষ্ঠপোষকতায় এই শিল্প ঢাকা থেকে স্থানান্তরিত হয়ে ওখানে পৌঁছেছে। ১

বিশিষ্ট গবেষক জোলেখা হক লিখেছেন, “As mentioned before the homespun muslin thread was the domain of Hindu weavers of tantis, who, after the fall in the trade of fine muslin, gradually migrated from Dhaka to present-day Tangail and neighbouring Bajitpur, which also became famous as a center of fine cotton saris.” ২

এ দুই বিবরণের ভিত্তিতে বলা যায়, টাঙ্গাইলের তাঁতিদের উৎস হলো ঢাকার তাঁতি সম্প্রদায়। সে হিসেবে বলা যেতে পারে টাঙ্গাইলের তাঁতিরা মসলিন বয়নের কৌশল অনুসরণ করেই বস্ত্র বয়ন করত। তবে কালের প্রবাহে নানা পরিবর্তনও এসেছে তাতে। যেমন অতীতে সনাতনী গর্ত তাঁত ব্যবহার করে বস্ত্র বয়ন করা হতো, যেখানে মাকু ছোড়া হতো হাতে। কালক্রমে সনাতনী গর্ত তাঁতের সংখ্যা কমে গেছে (এখন নেই বললেই চলে) এবং এর বিকল্প হিসেবে বর্তমানে খটখটি বা ঠকঠকি তাঁত, ফ্রেম তাঁত এমনকি চিত্তরঞ্জন তাঁত পর্যন্ত ব্যবহার হচ্ছে। আগে শুধু ঝাঁপের সাহায্যে হাতে নকশা বুটি তোলা হতো। এখন জ্যাকার্ড ও ডবি ব্যবহার করে নানা ধরনের ডিজাইন করা হচ্ছে। বোধগম্য কারণে টাঙ্গাইলের বসাক তাঁতিদের বয়ন পদ্ধতি ও কৃৎকৌশলে নানা পরিবর্তন এসেছে।

টাঙ্গাইলের শাড়ির খ্যাতি নকশার কারণেই বিস্তার লাভ করেছিল। এবং এ খ্যাতি লাভের পেছনে মূলত দুটি কারণ সক্রিয় ছিল। প্রথমত, মসলিনের তাঁতি হওয়ায় তারা সূক্ষ্ম ও মিহি সুতা ব্যবহার করে উন্নতমানের বস্ত্র তৈরির কৌশল জানত। ফলে জোলা বা যোগীদের চেয়ে তাদের বস্ত্রের মান ভালো হতো। বঙ্গীয় শিল্প বিভাগের প্রতিবেদনে (১৯২৯) স্পষ্টই বলা হচ্ছে, The popularity of these cloths is due to the fact that they are fine and look well. The Bajitpur weavers use 120 to 250 counts of yarn for fine cloths. ৩

দ্বিতীয়ত, বিশ শতকের প্রথম দশকের মধ্যে নানা কারণে মসলিন বয়ন বন্ধ হয়ে গেলে টাঙ্গাইলের এ বসাক তাঁতিরা অতি দ্রুত পরিবর্তিত পরিস্থিতির সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেয়ার জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছিল। এর একটা হলো তৎকালীন আধুনিক প্রযুক্তি অর্থাৎ ঠকঠকি তাঁত ব্যবহার এবং ডবি ও জ্যাকার্ড মেশিনের ব্যবহার। বিভিন্ন সূত্র থেকে যা জানা যায়, তাতে মনে হয় যে ১৯২০-১৯৩০ কালপর্বেই টাঙ্গাইলে ডবি ও জ্যাকার্ড মেশিনসহ ফ্লাইসেটেল বা ঠকঠকি তাঁতের প্রচলন হয়েছিল। সাবুদ হিসেবে বলা যায়, টাঙ্গাইলে সরকারি বয়ন বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ১৯১৮ খ্রিস্টাব্দে। ফলে ১৯২০-৩০ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে সেখানে ডবি ও জ্যাকার্ড চালু হয়ে যাওয়া খুবই সম্ভব। বঙ্গীয় শিল্প বিভাগের কুটির শিল্পবিষয়ক জরিপ প্রতিবেদন (১৯২৯) এবং রঘুনাথ বসাক (১৯১৩-২০০৯) এর সাক্ষ্য এ বক্তব্য সমর্থন করে। ৪

তার মানে অবশ্য এই নয় যে জ্যাকার্ড বা ডবি আসার আগে কাপড়ে কোনো নকশা ছিল না। তখনো নকশা হতো টাঙ্গাইলের শাড়িতে। তবে এখন যেসব রকমারি নকশা দেখা যায় টাঙ্গাইল শাড়িতে, সে রকম নয়। ডবি বা জ্যাকার্ড মেশিন আসার আগে টাঙ্গাইলে কী ধরনের নকশা হতো, কীভাবে বোনা হতো সেসব নকশা, তার চমকপ্রদ বর্ণনা দিয়েছেন রঘুনাথ বসাক (১৯১৩-২০০৯) তার অপ্রকাশিত পাণ্ডুলিপিতে।

তার ভাষায় : “এরপর ১৩২৫ সনের পর হইতে ১৩৩৫ সন পৰ্য্যন্ত টাঙ্গাইল তাঁত বস্ত্র শিল্পের ক্রমে বৎসর পর বৎসর আরও উন্নতি লাভ করিতে লাগিল। এই সময়সীমার মধ্যে বিশেষ উল্লেখযোগ্য এই যে সাদা জমিনে তিন পাইড় অর্থাৎ পাছা পাইড় বলা হইত এগুলি প্রচুর তৈরি হইয়া বাজারে আদরের সহিত বিক্ৰী হইত। এই সময়ের কিছু কাল পূৰ্ব্ব হইতে কিছু কিছু নক্সীর কাজ আরম্ভ হইল যথা:- বেকী পাইড়, চোকবেকী, চাটাই পাইড়। তৎপর বৎসর গুলিতে জরির, আর্ট সিল্ক রঙ্গীন সুতা ইত্যাদি ক্রমে আমদানী হইতে লাগিল উহা দ্বারা ১৩৩০ হইতে ক্রমে চেন পাইড়, বিস্কুট পাইড়, জরির বা শিল্কের চোচা পাইড় পটাপটি পটাপটি (সিতি সিন্দুর) পাইড়, তাজ পাইড়, আনারকলি পাইড়, চুরি পাইড়, স্কার্ট (?) পাইড়, ফিতাচুরি ফিতা বালেট পাইড়; এতদ্‌ব্যতীত আরো বিভিন্ন পাইরের নমুনার বস্ত্র তৈরি হইত। কিন্তু এসব কাপড়ই সাদা জমিনে ছিল। ওপরোক্ত সাদা জমিনে লাল সাদা জমিনে পাছা পাইড় শাড়ী গুলি ১৩৩৫ সন হইতে সম্পূর্ণরূপে বন্ধ হয়ে যায়। তৎপর ১৩৩০ সনের পর হইতে ১৩৩৫ সন পর্যন্ত বয়ন শিল্পের আরও উন্নতি হয়। এ সময়ের মধ্যেও কোনো মেশিনের সাহায্য ছিল না। সবই হাত পা বাঁশ লোহার মাকুর সাহায্যে বস্ত্র তৈরী করিত।” ৫

অবশ্য উল্লেখ করা যেতে পারে, বিশ শতকের বিশ কিংবা ত্রিশের দশকে ঠকঠকি তাঁত এবং ডবি ও জ্যাকার্ড মেশিন টাঙ্গাইল ছাড়াও আরো অনেক স্থানেই প্রচলিত হয়েছিল, তার পরও টাঙ্গাইলের শাড়ি বিশেষ খ্যাতি লাভের কারণ কী? কারণ বসাক তাঁতিরা শুধু এটা ব্যবহার করেই থেমে থাকেনি। শাড়ির নকশায় নানা রকমের নতুনত্ব, পরিবর্তন, পরিবর্ধন, সংযোজন ইত্যাদির ব্যাপারে সচেষ্ট হয়েছিল। ফলে টাঙ্গাইলের শাড়ির নকশায় নানা রকম উন্নতি ঘটেছে। তবে এ উন্নতি একদিনে ঘটেনি। রঘুনাথ বসাকের বিবরণ থেকে জানা যায়—

“তৎপর ১৩৩৫ সন হইতে জ্যাকার্ড মেশিন ও ফ্লাইসেটেলের সাহায্যে বসাক তাঁত শিল্পীদের উৎকৃষ্ট নমুনার বয়ন শিল্পের এক নবযুগ আরম্ভ হইল। টাঙ্গাইল নিবাসী মহাভারত বসাকের পুত্র রমেশ বসাক সৰ্ব্ব প্রথমে টাঙ্গাইলে ব্রিটিশ আমলের গভর্নমেন্ট উইভিং স্কুল হইতে জ্যাকার্ড মেশিনের ও ফ্লাইসেটেলের সাহায্যে বস্ত্র বয়ন করা শিক্ষা লাভ করে তথা হইতে উইভিং পাশ করে আসিয়া সে নিজ বাড়ীতে সৰ্ব্ব প্রথমে জ্যাকার্ড মেশিনে ও ফ্লাইসেটেলের একটি তাঁত বসাইয়া বিভিন্ন রকমের লতাপাতা নক্সী শাড়ী তৈরী আরম্ভ করে। ইহা দেখিয়া বিভিন্ন বসাকদের গ্রামের বসাকগণ ২/১টা করে জ্যাকার্ড মেশিনের তাঁত বসাইয়া লতাপাতার নক্সী শাড়ী তৈরী আরম্ভ করিতে লাগিল এবং এইরূপে ক্রমে ক্রমে প্রতি বসাকদের গ্রামে গ্রামে অল্প কয়েক বৎসরের মধ্যে প্রায় বসাকদের ঘরে ঘরে জ্যাকার্ড ও ফ্লাইসেটেলের সাহায্যে উৎকৃষ্ট বয়ন শিল্পের কাজ চালু হইয়া গিয়াছিল। এই প্রকারের ২/১ বৎসরের মধ্যে ১০০/১৫০ ডাঙ্গি জ্যাকার্ড মেশিনে বিভিন্ন নমুনার নক্সী লতাপাতা, জরি বা আর্ট শিল্পের শঙ্খ পাইড়, পাহাড় পাইড় বিশেষ উল্লেখযোগ্য।” ৬

পরবর্তীকালে এ নকশার নানা পরিবর্তন ঘটেছিল। এর বিবরণও রঘুনাথ দিয়েছেন—

“তৎপর ১৩৪০ সন হইতে ৫০/১০০/১৫০/২০০/২৫০/৩০০ ডাঙ্গি জ্যাকার্ড মেশিনের সাহায্যে সাদা ও রঙ্গিন জমিনের মধ্যে শুধু মিহি সুতায়, হাফ সিল্ক, (হাওয়া শাড়ী) ফুল সিদ্ধ শাড়ীগুলির মধ্যে লাল জরি কম, সাদা জরির ও লাল জরি সংমিশ্রণে ১০০/১৫০/২০০/২৫০ ও ৩০০ ডাঙ্গি ইত্যাদি নানা প্রকার লতাপাতা ডিজাইনের মিনা পাইড় শাড়ী তৈরী হইতে লাগিল।…এর ২/৩ বৎসর হইতে ঢাকা, কলিকাতা, বোম্বে ইত্যাদি বড় বড় সহর হইতে নূতন নমুনার ডিজাইন আনিয়া সুদক্ষ সুপার ফাইন্ বসাক তাঁত শিল্পীদের দ্বারা আরও অধিক উন্নত ধরনের শাড়ী তৈরী হইতে লাগিল। এই নমুনার শাড়ীগুলির আবার পৃথক পৃথক নাম রাখা হইয়াছিল যথা:- জরি ও সিল্কযুক্ত ‘মানে না মানা’, ‘মেট্রো’, ‘জয়হিন্দ’, ‘জর্জেট’, ইত্যাদি।…” ৭

ফলে দেখা যাচ্ছে, বিশ শতকের প্রথমার্ধেই টাঙ্গাইল শাড়ির নকশায় বাইরের প্রভাব পড়েছিল। এ ধারাবাহিকতা ১৯৪৭-এর দেশভাগের পরেও প্রবাহিত ছিল। তবে টাঙ্গাইল শাড়ির নকশার আরেকটা পর্ব আছে, সেটার সূত্রপাত বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর, বিশ শতকের আশির দশকে। এর সঙ্গে টাঙ্গাইল শাড়ি কুটিরের কর্ণধার মুনিরা ইমদাদের বিশেষ ভূমিকা আছে। এছাড়া পরবর্তীকালের ঢাকার বুটিক হাউজগুলোর ভূমিকা উল্লেখযোগ্য।

ওপরের এ বিবরণ যদি আমরা গ্রহণ করি, তাহলে এখানে আমাদের যা বলার আছে তা হলো জামদানির মতো টাঙ্গাইলের সুতি শাড়ির নকশা প্রাচীন কোনো ঐতিহ্য বহন করে, এমনটা বলা ঠিক হবে না। বরং ডবি ও জ্যাকার্ড মেশিন আসার পর টাঙ্গাইল শাড়ির নকশার গল্পটা মূলত আত্তীকরণের ও আত্মস্থকরণের গল্প। এবং এটা জামদানির মতো অতটা প্রাচীনও নয়। কিন্তু অপেক্ষাকৃত অর্বাচীন হলেও টাঙ্গাইল শাড়ির নকশার বৈচিত্র্য কিন্তু কম আকর্ষণীয় নয়।

মজার তথ্য হলো, এ দুই ধারার শাড়ির নকশা কিন্তু একটা আরেকটাকে কখনো কখনো প্রভাবিত করেছে। জামদানি শাড়ির একটা নকশার নাম টাঙ্গাইল্যা পাইড়। আবার জামদানির ডিজাইন অনুসরণ করে জ্যাকার্ড মেশিনের সাহায্যে শাড়ি তৈরি হতে দেখা যায় টাঙ্গাইলে। টাঙ্গাইলের সে নকশার নাম জামদানি পাইড়।

ঠকঠকি তাঁত ও ডবি বা জ্যাকার্ড মেশিন আসার আগে টাঙ্গাইলের শাড়িতে যে ধরনের নকশা হতো, তা ছিল সাধারণ মানের। সে সময়ের তাঁতের কাজের বিবরণ দিয়েছেন রঘুনাথ বসাক এ ভাষায়—

“তৎকালে বস্ত্র তৈরীর জন্য কোনো মেশিন ছিল না। শুধু হাত ও পা দ্বারা বাঁশ কাঠের সাহায্যে যন্ত্র তৈরী করিতে হইত। ফ্লাইসেটেল ছিল না। এক জোড়া ভালকাঠের দপ্তী দ্বারা, সুরু লোহার মাকুর দ্বারা, সুতার বওয়ের দ্বারা, ৮০০/৯০০/১,০০০/১১০০/১২০০/১৩০০ শানা দ্বারা, মাটী গর্ত করিয়া (পরীগাথ) তথায় বাঁশের রড় দ্বারা, পারাপারি দ্বারা সাদাসিদা ভাবে সব সাদা কাপড় তৈরী করিত। তখন এক ফর্দ রঙ্গিন শাড়ী ছিল না। পরীগাথার গর্ভের মধ্যে পা দিয়া ঝাপ ধরিত আর দুই হাত দ্বারা লোহার চিকন মাকু ডাইন হাতের আঙ্গুল দ্বারা ধাক্কা দিয়া বাম হাতে লইত এবং আবার বাম হাতের আঙ্গুল দ্বারা ধাক্কা দিয়া ডাইন হাতে লইত। এইভাবে সমস্ত রকমের বস্ত্র তৈরী করিত।” ৮

এ পদ্ধতিতে যেসব নকশা হতো, তা ছিল মূলত সরল ধরনের বিভিন্ন জ্যামিতিক নকশা। জটিল ও বাস্তবানুগ নকশা করার সুযোগ তাতে ছিল না। কিন্তু ত্রিশের দশক নাগাদ (কিংবা তার কিছু আগেই) জ্যাকার্ড ও ডবি মেশিন এবং ফ্লাইসেটেল লুম চালু হওয়ার পরে বিভিন্ন ধরনের জটিল ও কঠিন ডিজাইন শাড়িতে ফুটিয়ে তোলায় আর অসুবিধা রইল না। ফলে যেসব বিষয়বস্তু বা মোটিফ নকশায় চলে এল, তা মূলত বিভিন্ন প্রাকৃতিক অনুষঙ্গ। বিভিন্ন ধরনের ফুল, লতাপাতাসহ নানা ধরনের পাখি, প্রজাপতি, ময়ূর ইত্যাদি।

এখানে একটা কথা বলা প্রয়োজন, টাঙ্গাইল শাড়িতে ডিজাইন হয় এখনো দুভাবে। আদি পদ্ধতি অনুযায়ী এখনো কিছু শাড়িতে হাতে বুটি তোলা হয় জমিনে। এগুলোয় পাইড়ে জ্যামিতিক ধরনের সাধারণ নকশা থাকে কিংবা কোনো নকশাই থাকে না। আর কোনো কোনোটায় শাড়ির পাইড়, আঁচল ও জমিনে জ্যাকার্ড মেশিনের সাহায্যে বুটি তোলা হয়। হাতে নিয়ে কাছ থেকে খেয়াল করলে বোঝা সম্ভব, বুটি হাতে তোলা নাকি জ্যাকার্ডে তোলা। হাতে তোলা বুটিগুলোর দুই পাশ অসম হয় কিন্তু জ্যাকার্ডের বুটিগুলো দুই পাশ সমান।

আবার কখনো কখনো রাজনৈতিক মোটিফ যেমন ‘নৌকা’ ব্যবহার করে শাড়ির পাইড় নকশা করার কথাও শোনা যায়। সত্তরের দশকে ও মুক্তিযুদ্ধ-পরবর্তী সময়ে এ শাড়ির পাইড়ে নৌকার নকশা খুব জনপ্রিয় ছিল।

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর দেশী তাঁতের প্রতি বাঙালি জাতির যে আগ্রহ ও মমত্ববোধ তৈরি হয়, তাতে টাঙ্গাইলের তাঁতিরা উপকৃত হয় এং শাড়ির নকশায়ও এর প্রভাব পড়ে। এ সময় থেকে টাঙ্গাইলের শাড়ির নকশা আরো জটিল ও সমৃদ্ধ হতে থাকে।

তবে সাম্প্রতিককালের টাঙ্গাইল শাড়ির নকশার কৃৎকৌশলগত নতুন সংযোজন হিসেবে বলতে হয় কম্পিউটার ব্যবহারের কথা। আগে জ্যাকার্ড মেশিনের জন্য গ্রাফ কাগজে নকশা আঁকা হতো, এখন এর বিকল্প হিসেবে নকশা করতে কম্পিউটারের সাহায্য নেয়া হয়। জ্যাকার্ড মেশিনে নকশা করার একটা সুবিধা এই যে যেকোনো ধরনের নকশা শাড়িতে ফুটিয়ে তোলা যায়। এর মূল বিষয়টি নির্ভর করে জ্যাকার্ড মেশিন বয়নের জন্য প্রস্তুত করার ওপর। বয়নকারী তাঁতি বা কারিগরের ওপর নকশা নির্ভর করে না, যেমনটা করে জামদানির ক্ষেত্রে। এ বিপুল স্বাধীনতা নানা রকম চিত্তাকর্ষক নতুনত্বের পাশাপাশি বিচিত্র (!) অভিজ্ঞতার জন্ম দিয়েছে নকশার ক্ষেত্রে।

যেমন সরেজমিন অনুসন্ধান করার সময় আমরা মোবাইল ফোনের টাওয়ার, সেলফোন, এমনকি হেলিকপ্টার পর্যন্ত টাঙ্গাইল শাড়ির নকশায় মোটিফ হিসেবে ব্যবহারের জন্য প্রস্তুত হতে দেখেছি। এ ধরনের নতুনত্ব বা নবতর সংযোজন ভালো না খারাপ, সে বিতর্কে না জড়িয়েও আমরা বলতে পারি এটাই টাঙ্গাইল শাড়ির নকশার বৈশিষ্ট্য। এ বৈশিষ্ট্য যতটা না ঐতিহ্যমুখী, তার চেয়ে অনেক বেশি বাস্তবমুখী ও সাম্প্রতিক ধারাপ্রবণ। এর ফল হয়েছে এই যে টাঙ্গাইল শাড়ির নকশা সবসময়ই পরিবর্তনের ভেতর দিয়ে গেছে ও যাচ্ছে। কোনো একটা বিশেষ ঘরানার দ্বারা টাঙ্গাইল শাড়ির নকশা প্রভাবিত হয়নি। বরং বিভিন্ন ধরনের নকশার ধারা এসে টাঙ্গাইল শাড়ির নকশায় মিশে গেছে। আর বসাক তাঁতিদের হাতেও কোনো নতুন নকশা তৈরি হয়নি, তাইবা আমরা জোর গলায় কীভাবে বলি? কিন্তু নকশার নিদর্শন ও নির্ভরযোগ্য সূত্রের অভাবে এ সম্পর্কে নিশ্চিত কোনো মন্তব্য করা দুরূহ।

উল্লেখ্য, পুরনো দিনের টাঙ্গাইল শাড়ির হদিস পাওয়া এখন খুবই মুশকিল। বাংলাদেশের কোনো জাদুঘরে পুরনো টাঙ্গাইলের শাড়ি সংগৃহীত আছে বলে আমার জানা নেই। আর ব্যক্তিগত সংগ্রহের শাড়িগুলোও নানা কারণে নষ্ট হয়ে বা হারিয়ে গেছে কিংবা সেগুলো খুঁজে বের করা কঠিন। ফলে পুরনো দিনের টাঙ্গাইল শাড়ির নকশা সম্পর্কে বিভিন্ন সূত্র (মৌখিক ও লিখিত) থেকে যতটুকু জানা গেছে, নিদর্শনের অভাবে তার সত্য-মিথ্যা যাচাই করা মুশকিল। আর তাছাড়া আজও টাঙ্গাইলের তাঁত ও তাঁতি নিয়ে নানা রকমের নৃতাত্ত্বিক বা উন্নয়নমূলক গবেষণা হলেও টাঙ্গাইল শাড়ির নকশা নিয়ে বিশেষ কোনো গবেষণা হয়েছে বলে শোনা যায় না। কিংবা এর কোনো যথাযথ ডকুমেন্টেশন করা হয়েছে বলে আমার জানা নেই।

টীকা

১. হাকিম হাবিবুর রহমান, ঢাকা: পঞ্চাশ বছর আগে, অনুবাদ: ড. মোহাম্মদ রেজাউল করিম, প্যাপিরাস, ঢাকা, ২০০৫ (প্র. প্র. ১৯৪৯), পৃ. ২৮

২. Zulekha Haque, ‘Sari: Cotton and Silk’, Textile Traditions of Bangladesh, National Crafts Council of Bangladesh, Dhaka, 2006, p. 68

৩. Government of Bengal, Department of Industries, Report on the survey of Cottage Industries in Bengal, Bengal Secretariat Book Depot, Calcutta, Second Edition: 1929, p. 79

৪. ঐ, পৃ. ৭৯-৮০। রঘুনাথ বসাকের অপ্রকাশিত পাণ্ডুলিপি।

৫. রঘুনাথ বসাকের অপ্রকাশিত পাণ্ডুলিপি।

৬. রঘুনাথ বসাকের অপ্রকাশিত পাণ্ডুলিপি। ১৯২৮ সাল থেকে টাঙ্গাইলে ফ্লাইসেটেল লুমের প্রচলনের এ বিবরণের সমর্থনে কুটিরশিল্প বিভাগের জরিপের তথ্য উল্লেখ করা যায়। সেখানে বলা হচ্ছে, ‘In many places in the interior of Tangail subdivision fly-shuttle looms have been introduced by the peripatetic weaving instructor. (Report on the survey of Cottage Industries in Bengal, p. 80)

৭. রঘুনাথ বসাকের অপ্রকাশিত পাণ্ডুলিপি

৮. রঘুনাথ বসাকের অপ্রকাশিত পাণ্ডুলিপি

[রচনাটি দেশাল প্রকাশিত লেখকের ’বাংলাদেশের তাঁতশিল্প’ গ্রন্থ (২০১৮) থেকে ঈষৎ সম্পাদিত রূপে এখানে সংকলিত]

লেখক: শাওন আকন্দ (চিত্রশিল্পী ও গবেষক)

সম্পাদনায়: মো. আরমান কবীর ও সাহান হাসান

সর্বশেষ আপডেটঃ ১৪. ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ০৩:০৮:এএম ২ মাস আগে
প্রধানমন্ত্রীর কাছে টাঙ্গাইল শাড়ির জিআই সনদ হস্তান্তর - Ekotar Kantho

প্রধানমন্ত্রীর কাছে টাঙ্গাইল শাড়ির জিআই সনদ হস্তান্তর

একতার কণ্ঠঃ টাঙ্গাইল শাড়িসহ সদ্য নিবন্ধিত তিনটি পণ্যের ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) সনদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

রবিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকের আগে পণ্য তিনটির সনদ হস্তান্তর করেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন। সকাল ১০টায় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৈঠকের শুরুতেই শিল্প মন্ত্রণালয়ের নকশা ও ট্রেডমার্ক বিভাগের টাঙ্গাইল শাড়ি, নরসিংদীর অমৃত সাগর কলা এবং গোপালগঞ্জের রসগোল্লার জিআই সার্টিফিকেট এবং টাঙ্গাইলের শাড়ি প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করেন শিল্পমন্ত্রী।

শিল্পমন্ত্রী ও শিল্প মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব জাকিয়া সুলতানা সনদের সঙ্গে একটি টাঙ্গাইল শাড়িও প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন।

নতুন তিনটি পণ্যসহ বাংলাদেশের মোট ২২টি পণ্য জিআই সনদ পেল।

আগে নিবন্ধিত পণ্যগুলো হলো- জামদানি শাড়ি, বাংলাদেশের ইলিশ, চাঁপাইনবাবগঞ্জের খিরসাপাতি আম, বিজয়পুরের সাদা মাটি, দিনাজপুরের কাটারিভোগ, বাংলাদেশের কালোজিরা, রংপুরের শতরঞ্জি, রাজশাহীর সিল্ক, ঢাকার মসলিন, বাংলাদেশের বাগদা চিংড়ি, রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের ফজলি আম, বাংলাদেশের শীতলপাটি, বগুড়ার দই, শেরপুরের তুলসীমালা, চাঁপাইনবাবগঞ্জের ল্যাংড়া আম, চাঁপাইনবাবগঞ্জের আশ্বিনা আম, বাংলাদেশের ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল, নাটোরের কাঁচাগোল্লা, টাঙ্গাইলের পোড়াবাড়ির চমচম, কুষ্টিয়ার তিলের খাজা ও কুমিল্লার রসমালাই।

সর্বশেষ আপডেটঃ ১২. ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ০২:৫৯:এএম ২ মাস আগে
অবশেষে টাঙ্গাইল শাড়ির জিআই স্বত্ব পেতে আবেদন - Ekotar Kantho

অবশেষে টাঙ্গাইল শাড়ির জিআই স্বত্ব পেতে আবেদন

একতার কণ্ঠঃ টাঙ্গাইল শাড়ির জিওগ্রাফিক্যাল ইন্ডিকেশন (জিআই) স্বত্ব পেতে আবেদন করেছেন জেলা প্রশাসক।

মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারি) শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন পেটেন্ট, শিল্প-নকশা ও ট্রেড মার্কস অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বরাবর এ আবেদন করা হয়।

মঙ্গলবার বিকেলে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এ কথা জানান জেলা প্রশাসক। দ্রুতই আবেদনটি কার্যকর করা হবে বলেও জানান তিনি।

জেলা প্রশাসক কায়ছারুল ইসলাম বলেন, টাঙ্গাইল শাড়ি প্রকৃতপক্ষে যেকোনো বিচারে বাংলাদেশের জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ার দাবিদার। আমরা বিগত তিন মাস ধরে টাঙ্গাইল শাড়ির জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি লাভের জন্য ডকুমেন্টেশন কার্যক্রম চালিয়ে আসছি। মঙ্গলবার আমরা আবেদন করেছি। মূলত শাড়িটির ইতিহাস, এর সাথে সংশ্লিষ্ট মানুনের জীবন জীবিকার তথ্যটি, আড়াইশ’ বছরের ইতিহাসের তথ্যাদি সংগ্রহ করে ডকুমেন্টেশন তৈরি করে আবেদন করা হয়েছে। আবেদনটি ইতোমধ্যে গ্রহণ করা হয়েছে। আশা করছি দ্রুতই টাঙ্গাইল শাড়ি নামে জিআই স্বীকৃতি পাব।

তিনি আরও বলেন, টাঙ্গাইল শাড়ির জিআই স্বীকৃতি পাওয়ার পরে ‘ওয়ার্ল্ড ইন্টেলেকচুয়াল প্রপার্টি অর্গানাইজেশন’-এর গঠনতন্ত্র অনুযায়ী আপিল করব। ভারত ‘টাঙ্গাইল শাড়ি অব বেঙ্গল’ নামে যে জিআই স্বীকৃতি পেয়েছে, এটি বাংলাদেশের স্বার্থের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। আমরা পুরোপুরি আশাবাদী টাঙ্গাইল শাড়ি চূড়ান্ত বিচারে বাংলাদেশের জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি নিয়ে আসতে পারব।

প্রকাশ, বাংলাদেশের বিখ্যাত টাঙ্গাইল শাড়ির উৎস পশ্চিমবঙ্গ- সম্প্রতি এমনটা দাবি করে ভারতীয় সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়। বিতর্কিত দাবিটি মন্ত্রণালয়ের অফিসিয়াল পেজে একটি ফেসবুক পোস্টের মাধ্যমে করা হয়েছিল, যা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সমালোচনা ও হাস্যরসের জন্ম দেয়।

পোস্টে দাবি করা হয়, “টাঙ্গাইল শাড়ি, পশ্চিমবঙ্গ থেকে উদ্ভূত একটি ঐতিহ্যবাহী হাতে বোনা মাস্টারপিস। সূক্ষ্ম উপস্থাপন, প্রাণবন্ত রং এবং জটিল বুননের জন্য শাড়িটি বিখ্যাত, এটি এই অঞ্চলের সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের প্রতীক। প্রতিটি টাঙ্গাইল শাড়ি দক্ষ কারুকার্যের প্রমাণ; এটি ঐতিহ্য এবং কমনীয়তাকে একত্রিত করে। বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন সারাদেশের মানুষ।

সর্বশেষ আপডেটঃ ০৭. ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ০৩:৩২:এএম ২ মাস আগে
টাঙ্গাইল শাড়ির স্বত্ব নিয়ে ফুসে ওঠছে জেলাবাসী - Ekotar Kantho

টাঙ্গাইল শাড়ির স্বত্ব নিয়ে ফুসে ওঠছে জেলাবাসী

একতার কণ্ঠঃ ঐতিহ্যবাহী টাঙ্গাইল শাড়িকে ভারতের দাবি করে ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) স্বীকৃতি নেওয়ার প্রতিবাদে ক্ষোভে ফুসে ওঠছে জেলাবাসী। দ্রুত ভারতের জিআই বাতিল করে বাংলাদেশের পণ্য হিসেবে ‘টাঙ্গাইল শাড়ি’কে জিআই স্বীকৃতির দাবি করেছে জেলার ব্যবসায়ী ও সুধীজনরা।

ভারতের সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজ থেকে বৃহস্পতিবার (১ ফেব্রুয়ারি) করা একটি পোস্টে বলা হয়- ‘টাঙ্গাইল শাড়ি, পশ্চিমবঙ্গ থেকে উদ্ভূত, একটি ঐতিহ্যবাহী হাতে বোনা মাস্টারপিস। এর মিহি গঠন, বৈচিত্র্যময় রং এবং সূক্ষ্ম জামদানি মোটিফের জন্য বিখ্যাত এটি এই অঞ্চলের সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের প্রতীক। টাঙ্গাইলের প্রতিটি শাড়ি ঐতিহ্য ও সমৃদ্ধ সৌন্দর্যের মেলবন্ধনে দক্ষ কারুকার্যের নিদর্শন।’

এরপর থেকে টাঙ্গাইলসহ সারাদেশে ক্ষোভ ও প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সোচ্চার হয়ে প্রতিবাদ জানাচ্ছে। জেলা সদর সহ বিভিন্ন স্থানে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে।
টাঙ্গাইলের সচেতন মহল ইতোমধ্যে মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে। এ বিষয়ে জরুরি সভা করে মন্ত্রণালয়ে কথা বলে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের আশ্বাস দিয়েছেন টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক।

টাঙ্গাইল শাড়ি বাংলাদেশি পণ্য হিসেবে জিআই স্বীকৃতির দাবিতে শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) বিকালে ‘সচেতন নাগরিক সমাজ’- এর ব্যানারে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়। মানববন্ধনকারীরা ‘টাঙ্গাইলের তাঁত শাড়ি, টাঙ্গাইলের ঐতিহ্য’, ‘নদী-চর খাল-বিল গজারির বন, টাঙ্গাইলের শাড়ি তার গরবের ধন’, ‘আমার ঐতিহ্য, আমার অহঙ্কার’, ‘টাঙ্গাইলের তাঁত শাড়ির জিআই স্বীকৃতি চাই’- ইত্যাদি লেখা প্ল্যাকার্ড নিয়ে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধনে দাঁড়ান।

ওই কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন, শিশুদের জন্য ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মুঈদ হাসান তড়িৎ, আরিফুজ্জামান সোহেল, সমাজকর্মী নাজিউর রহমান আকাশ, মির্জা রিয়ান, আহসান খান মিলন, স্মরণ ইসলাম প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, টাঙ্গাইল শাড়ি বাংলাদেশের বিখ্যাত শাড়ি। ভারতীয় সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের অফিসিয়াল পেজে এই টাঙ্গাইল শাড়ি, পশ্চিমবঙ্গ থেকে উদ্ভূত একটি ঐতিহ্যবাহী হাতে বোনা মাস্টারপিস বলা হয়েছে। এর তীব্র নিন্দা জানাই। একই সঙ্গে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য বর্তমান সরকারের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করি।

সরেজমিনে টাঙ্গাইল শাড়ির সঙ্গে জড়িতরা জানায়, প্রায় ২০০ বছর ধরে ইতিহাস ঐতিহ্যের ধারক-বাহক টাঙ্গাইলের তাঁত শাড়ি। যা নিজস্ব ঐতিহ্য বহন করে বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সুনাম কুড়িয়েছে। এছাড়া ‘নদী-চর খাল-বিল গজারির বন, টাঙ্গাইল শাড়ি তার গরবের ধন’ এ স্লোগানের আলোকেই টাঙ্গাইলের মানুষের জীবনাচরণ চলমান। টাঙ্গাইল শাড়ি সদর উপজেলার বাজিতপুর, কৃষ্ণপুর, দেলদুয়ারের পাথরাইল, চন্ডী, কালিহাতীর বল্লা, রামপুর সহ বিভিন্ন এলাকায় তৈরি হয়। তবে দেলদুয়ারের পাথরাইল টাঙ্গাইল শাড়ির রাজধানী হিসেবে খ্যাত।

বল্লা এলাকার সুতা ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মোস্তফা আশরাফী ও সাধারণ সম্পাদক সোলায়মান হাসান ভারতের কড়া সমালোচনা করে জানান, প্রায় আড়াইশ’ বছরের ঐতিহ্য টাঙ্গাইল শাড়ি। এ শাড়ি টাঙ্গাইলেই অসাধারণ কারুকার্য ও সুক্ষ্ম নিপুনতায় অত্যন্ত দরদ দিয়ে তৈরি করা হয়। টাঙ্গাইল শাড়ির স্বত্ব শুধুমাত্র টাঙ্গাইলের তাঁতিদের। ভারতের পশ্চিমবঙ্গ সরকার টাঙ্গাইল শাড়ির ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) স্বীকৃতি দিয়ে ঐতিহ্যবাহী টাঙ্গাইল শাড়ির স্বত্ব ছিনতাই করার দুঃসাহস দেখিয়েছে।

টাঙ্গাইল শাড়ির রাজধানী খ্যাত পাথরাইলের শাড়ি ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি রঘুনাথ বসাক জানান, টাঙ্গাইল শাড়ি বলতে টাঙ্গাইলকেই বোঝায়। টাঙ্গাইলের নাতিশীতোষ্ণ আবহাওয়া টাঙ্গাইল শাড়ির জন্য অত্যন্ত উপযোগী। ভিন্ন মান ও ভিন্ন দক্ষতায় টাঙ্গাইল শাড়ি তৈরি হয়। এই দক্ষতায় অন্য জায়গায় শাড়ি তৈরি হলেও সেটা টাঙ্গাইল শাড়ি না। অন্যরা টাঙ্গাইল শাড়িকে নিজের দাবি করে জিআই ট্যাগ নেওয়া- এটা আমাদের জন্য দুঃখজনক। তিনি এর প্রতিবাদ জানিয়ে এর বিরুদ্ধে সবাইকে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানান।

টাঙ্গাইল সাধারণ গ্রন্থাগারের সাধারণ সম্পাদক কবি মাহমুদ কামাল জানান, স্বাধীন বাংলাদেশের একটি ঐতিহ্যবাহী জেলা টাঙ্গাইল। কয়েকশ’ বছর আগে থেকে টাঙ্গাইল শাড়ি পৃথিবী বিখ্যাত। এ শাড়ির অন্য দেশের জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ার বিষয়টি সত্য নয়। ওই দেশের জিআই স্বীকৃতি বাতিল করে বাংলাদেশের পণ্য হিসেবে টাঙ্গাইল শাড়িকে জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতির দাবি জানান তিনি।

টাঙ্গাইল সেন্ট্রাল কো-অপারেটিভ আর্টিজেন্স ওয়েল ফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন লিমিটেড এবং বল্লা এলাকা তন্তুবায় সমবায় সমিতির সভাপতি মোফাখখারুল ইসলাম জানান, প্রাচীণকাল থেকে টাঙ্গাইল শাড়ি জেলার বিভিন্ন এলাকায় তাঁতিদের সুক্ষ্ম দক্ষতায় সুনিপুনভাবে তৈরি হচ্ছে। ১৯৪৭ ও ১৯৭১ সালে দেশভাগের পর টাঙ্গাইলের তাঁতিদের কেউ কেউ ভারতে গিয়ে বসতি স্থাপন করেছে। সেখানেই তারা আদি পেশা ‘তাঁত শিল্পের’ কাজ করছে। তাই বলে টাঙ্গাইল শাড়ি কখনোই সেদেশের হতে পারেনা। দীর্ঘ সময়ের প্রচেষ্টা ও অধ্যবসায়ের জোরে টাঙ্গাইল শাড়ি দেশ-বিদেশে সুনাম অর্জন করেছে। যারা ওই দেশে রয়েছে- তারাও শাড়ি তৈরি করে জীবিকা নির্বাহ করছে- এটা যেমন সত্য, তেমনি টাঙ্গাইল শাড়ি টাঙ্গাইলেরই সম্পত্তি- এটাও ধ্রুব সত্য। তিনি ওই দেশের জিআই স্বীকৃতি বাতিল করে বাংলাদেশের পণ্য হিসেবে টাঙ্গাইল শাড়িকে জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতির দাবি জানান।

টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক মো. কায়ছারুল ইসলাম জানান, টাঙ্গাইল শাড়ি, মধুপুরের আনারস ও জামুর্কির সন্দেশ জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি পেতে আবেদন প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে। এটা যে এখানকার অর্জন, সেটার ৫০ বছরের সুদীর্ঘ ধারাবাহিকতা দিতে হয়। অথচ টাঙ্গাইলের তাঁত শাড়ি আড়াইশ’ বছরের পুরাতন। টাঙ্গাইল শাড়ি জিআই পণ্যের স্বীকৃতি পাওয়ার অধিকার রাখে বলে তিনি মনে করেন। এছাড়া ২০১৭ সালে টাঙ্গাইল শাড়ি সরকার কর্তৃক ব্র্যান্ডিং হয়েছে।

তিনি আরও জানান, ভারত যে ঘটনাটা ঘটিয়েছে, তারা ডকুমেন্টেশনে উল্লেখ করেছে- পাথরাইলের বসাক পরিবারের আদি পুরুষরা সেখানে গিয়ে তাঁত শাড়ির পাড়ের ডিজাইন চেঞ্জ করে একটা ভিন্ন প্রকার উদ্ভাবন করেছে। এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে স্টাডি করা শুরু হয়েছে। তিনি জেলা প্রষশাসকের সম্মেলন কক্ষে জরুরি সভা করেছেন। মন্ত্রণালয় টু মন্ত্রণালয় কথা বলে এ বিষয়ে কীভাবে আবেদন করা যায় তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এছাড়াও আপিল করার সুযোগ থাকলে সে বিষয়েও কথা বলা হবে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ০৫. ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ০২:১৮:এএম ২ মাস আগে
কাঙ্খিত হুইলচেয়ার পেল জাহের-ফিরোজা দম্পতি - Ekotar Kantho

কাঙ্খিত হুইলচেয়ার পেল জাহের-ফিরোজা দম্পতি

একতার কণ্ঠঃ কাঙ্খিত হুইলচেয়ার পেল মো. জাহের আলী (৬০) ও ফিরোজা বেগম (৫০) দম্পতি। মঙ্গলবার (৩০ জানুয়ারি) দুপুরে টাঙ্গাইল শহরের শহিদ স্মৃতি পৌর উদ্যানে এক অনারম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তাদের কাছে এই হুইলচেয়ারটি হস্তান্তর করা হয়।

হুইলচেয়ার পেয়ে আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়ে শারীরিক ভাবে পঙ্গু ও মানসিক ভারসাম্যহীন ফিরোজা বেগম। সে ওই মুহূর্তে কথা বলার ভাষা হারিয়ে ফেলে। এর মাধ্যমে ফিরোজা বেগমের ভাঙ্গা ও ব্যবহার অযোগ্য হুইলচেয়ারটি পরিবর্তন করে নতুনভাবে জীবিকা নির্বাহের অবলম্বন পেল এই দম্পতি। জয় হলো আবারও মানবতার।

মানবিক আবেদনে সারা দিয়ে হুইলচেয়ারটি প্রদান করেন শারীরিকভাবে পঙ্গুদের নিয়ে কাজ করা সামাজিক সংগঠন সেন্টার ফর রুরাল ডিজেবল ডেভলপমেন্ট (সিআরডিডি) টাঙ্গাইল।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, সিআরডিডির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আবরার এইচ.কে ইউসুফ জাই, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সিফাত মোহাম্মদ আরেফিন, জনতা ব্যাংক লিমিটেড টাঙ্গাইল শাখার অ্যাসিস্ট্যান্ট জেনারেল ম্যানেজার মো. জাহাঙ্গীর আলম, দৈনিক আমাদের নতুন সময়ের জেলা প্রতিনিধি ও একতার কণ্ঠের সম্পাদক মো. আরমান কবীর (সৈকত), টাঙ্গাইল সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষক জাহিদ রানা, বিশিষ্ট সমাজ সেবক সাইদুল ইসলাম মিন্টু, একতার কণ্ঠের বার্তা-সম্পাদক সাহান হাসান প্রমূখ।

উল্লেখ্য, রবিবার (২৮ জানুয়ারি) দুপুরে টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার পাথরাইল ইউনিয়নের বড়টিয়া গ্রামের ভিক্ষুক দম্পতি জাহের ও ফিরোজার একটি ভিডিও চিত্র ধারণ করেন দৈনিক আমাদের নতুন সময়ের টাঙ্গাইল জেলা প্রতিনিধি ও একতার কণ্ঠের সম্পাদক মো. আরমান কবীর (সৈকত)। পরে রবিবার সন্ধ্যায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তার নিজের আইডিতে পোষ্ট করেন। ফেসবুকের সেই পোষ্ট দেখে টাঙ্গাইল জেলা ও জেলার বাহিরের অনেক হৃদয়বান ব্যক্তি তাদের কাঙ্খিত হুইলচেয়ার দেওয়ার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেন। পরে জনতা ব্যাংক টাঙ্গাইল শাখার অ্যাসিস্ট্যান্ট জেনারেল ম্যানেজার মো. জাহাঙ্গীর আলমের মাধ্যমে সামাজিক সংগঠন সেন্টার ফর রুরাল ডিজেবল ডেভলপমেন্ট (সিআরডিডি) টাঙ্গাইল শাখার সভাপতি আবরার এইচ.কে ইউসুফ জাই একটি স্টেনলেস স্টিল হুইলচেয়ার এই দম্পতিকে দেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেন। পরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মেহেদী হাসান নামের এক যুবক এই দম্পতির সাথে যোগাযোগ করে তাদের ঠিকানা জোগাড় করে দেয়। মঙ্গলবার (৩০ জানুয়ারি) দুপুরে এই দম্পতিকে তাদের কাঙ্খিত হুইলচেয়ারটি হস্তান্তর করা হয়।

সর্বশেষ আপডেটঃ ০১. ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ০৮:১৪:এএম ২ মাস আগে
টাঙ্গাইলে প্রাইভেটকার চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত - Ekotar Kantho

টাঙ্গাইলে প্রাইভেটকার চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

একতার কণ্ঠঃ টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে প্রাইভেটকার চাপায় শিমুল (৩২) নামে এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় রাকিব (৩০) নামে আরও একজন মোটরসাইকেল আরোহী আহত হয়েছেন।

শুক্রবার (১৯ জানুয়ারি) দুপুরে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের উপজেলার ডুবাইল ইউনিয়নের নাটিয়াপাড়া বাজার আন্ডারপাস ওভার ব্রিজে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত মোটরসাইকেল আরোহীর নাম শিমুল তবে এখানো তার পূর্ণ নাম-পরিচয় জানা যায়নি। আহত অপর মোটরসাইকেল আরোহীর নাম রাকিব। সে ভোলা জেলা সদরের মফিজুরের ছেলে বলে জানা গেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার দুপুরে ঢাকাগামী একটি প্রাইভেটকারের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কেই ছিটকে পড়ে এবং ঘটনাস্থলে মোটরসাইকেল আরোহী চাকায় পৃষ্ট হয়ে মারা যায়। আহত হয় তার সাথে থাকা অপর আরেক আরোহী। পরে পুলিশ খবর পেয়ে নিহতের মরদেহ উদ্ধার ও আহত রাকিবকে মির্জাপুর কুমুদিনী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।

মির্জাপুরের গোড়াই হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ (ওসি) মোল্লা টুটুল জানান, খবর পেয়ে নিহত ও আহতকে উদ্ধার করা হয়েছে এবং আহত ব্যক্তিকে মির্জাপুর কুমুদিনী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

তিনি আরও জানান, আইনি প্রক্রিয়া শেষে মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে। তবে নিহত শিমুলের পূর্ণ নাম-পরিচয় এখনো জানা যায়নি।

সর্বশেষ আপডেটঃ ২০. জানুয়ারী ২০২৪ ০২:৪৫:এএম ৩ মাস আগে
আটিয়া ইউনিয়ন আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে বিদায় সংবর্ধনা - Ekotar Kantho

আটিয়া ইউনিয়ন আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে বিদায় সংবর্ধনা

একতার কণ্ঠঃ টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার আটিয়া ইউনিয়নের আটিয়া ইউনিয়ন আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রনজিৎ কুমার পালের বিদায় অনুষ্ঠান ও অভিভাবক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (২ জানুয়ারি) সকালে বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে এ বিদায় অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দেলদুয়ার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মাহমুদুল হাসান মারুফ।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. তারিকুল ইসলাম, আটিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার সিরাজুল ইসলাম মল্লিক, ইউপি চেয়ারম্যান সাজ্জাদ হোসেন, দেউলি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তাহমিনা হক, ছিলিমপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি মজিবর রহমান, বাবু সুনীল কুমার দে, ব্যারিস্টার গোলাম নবী, আটিয়া মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) ইয়াছমিন আক্তার, সরকারি বিন্দুবাসিনী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কানিজ সালমা, সাবেক অধ্যক্ষ নারায়ন চন্দ্র দে, অধ্যাপক আব্দুর রাজ্জাক ও আব্দুল বারেক প্রমুখ।

আটিয়া ইউনিয়ন আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ইঞ্জিনিয়ার মো. ফজলুল হক মল্লিকের সভাপতিত্বে বক্তারা স্মৃতিচারণ করে বলেন, একজন জ্ঞানের আলো দানকারীর বিদায় জানাতে হচ্ছে। তিনি এ বিদ্যালয়ে দীর্ঘ ১৫ বছর শিক্ষকতা করেছেন, ওনি এ বিদ্যালয়ে আসার পর পাশের হার শতভাগে উন্নিত হয়েছে। শিক্ষার পরিবেশ ফিরে এসেছে। আজকে এ মহান শিক্ষকের বিদায় জানাতে গিয়ে চোখে অশ্রু ঝরে যাচ্ছে। আমরা এ মহান শিক্ষকের দীর্ঘায়ু ও সুস্বাস্থ্য কামনা করছি।

পরে বিদায়ী প্রধান শিক্ষক রনজিৎ কুমার পালকে সম্মাননা ক্রেস্ট দেন আটিয়া ইউনিয়ন আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা, টাঙ্গাইল জেলা মুজিব বাহিনীর কমান্ডার গেরিলা (বিএলএফ) বীর মুক্তিযোদ্ধা ইঞ্জিনিয়ার ফজলুল হক মল্লিক।

এছাড়াও প্রধান শিক্ষক ও তার সহধর্মিনীকে বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত) মো. রফিকুল ইসলাম, সহকারী শিক্ষকবৃন্দ, প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা ফুলেল শুভেচ্ছাসহ বিভিন্ন উপহার প্রদান করেন।

এসময় স্থানীয় এলাকাবাসী, প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষার্থীসহ অত্র বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা উপস্থিত ছিলেন।

সর্বশেষ আপডেটঃ ০৩. জানুয়ারী ২০২৪ ০২:২২:এএম ৩ মাস আগে
টাঙ্গাইলে মহাসড়কের পাশে রাখা বাসে অগ্নিসংযোগ - Ekotar Kantho

টাঙ্গাইলে মহাসড়কের পাশে রাখা বাসে অগ্নিসংযোগ

একতার কণ্ঠঃ নবম দফায় বিএনপি’র হরতাল-অবরোধ কর্মসূচি শুরুর আগে টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলায় মহাসড়কের পাশে রাখা বাসে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এতে বাসটির অধিকাংশ পুড়ে গেলেও কোনো হতাহত হয়নি।

সোমবার(২৭ নভেম্বর )রাত সাড়ে ১১টা দিকে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের ডুবাইল ইউনিয়নের নাটিয়াপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে বলে দেলদুয়ার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি)মোস্তাফিজুর রহমান জানান।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে তিনি জানান, বাসটি টাঙ্গাইল বাসস্ট্যান্ড থেকে মির্জাপুর ও সখিপুর রোডে যাতায়াত করে থাকে। মাঝে মাঝে মির্জাপুরের বিভিন্ন গার্মেন্টসের কর্মীদেরও নিয়ে আসা যাওয়া করে বাসটি।

তিনি আরও জানান,সোমবার পোশাক কর্মীদের নামিয়ে বাসটি নাটিয়াপাড়া মহাসড়কের পাশে দাঁড় করিয়ে রাখাছিল। পরে হঠাৎ রাত সাড়ে ১১টার দিকে বাসে ভিতরে ঘুমিয়ে থাকা হেলপার বাবলু মিয়া আগুন দেখতে পান।”

তার চিৎকারে আশেপাশে থাকা মানুষরা ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিলে তারা এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

বাসের হেলপার বাবলু মিয়া বলেন, “মহাসড়কের পাশে বাস দাঁড় করিয়ে রেখে আমি ঘুমিয়ে যাই। কিছুক্ষণ পরে দেখি বাসের পিছনে আগুন।”

দেলদুয়ার ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের স্টেশন অফিসার রাসেল মিয়া বলেন, “স্থানীয়রা সংবাদ দিলে আমরা ১৫ মিনিটের মধ্যে এসে বাসটির আগুন নিয়ন্ত্রণে আনি। বাসে শুধু হেলপার ছিলেন, তিনি আগুন দেখেই বের হয়ে আসেন তাই কোনো হতাহত নেই।”তবে বাসের ভেতর অনেকাংশই পুড়ে গেছে বলে জানান তিনি।

ওসি মোস্তাফিজুর বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা যাচ্ছে, নাশকতা সৃষ্টির জন্য বাসটিতে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। আলামত সংগ্রহ করা হচ্ছে। তদন্তের পর বিস্তারিত জানা যাবে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ২৮. নভেম্বর ২০২৩ ০৬:০৪:পিএম ৫ মাস আগে
কপিরাইট © ২০২২ একতার কণ্ঠ এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।