টাঙ্গাইলে দেয়ালে দেয়ালে শিহাব হত্যার বিচারের দাবিতে পোস্টার


১০:১২ পিএম, ১৮ জুলাই ২০২২
টাঙ্গাইলে দেয়ালে দেয়ালে শিহাব হত্যার বিচারের দাবিতে পোস্টার - Ekotar Kantho

একতার কণ্ঠঃ টাঙ্গাইলের দেয়ালে দেয়ালে ছেঁয়ে গেছে স্কুল ছাত্র শিহাব হত্যার বিচার ও দোষীদের ফাঁসি দাবির পোস্টার। হত্যাকান্ডের দিন থেকে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা বিচারের দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে আসছে।

মামলাসহ আবাসিক ভবনের এক শিক্ষক গ্রেপ্তাতারের পর হত্যার ২৭ দিনেও রহস্য উদঘাটন ও প্রকৃত দোষী গ্রেপ্তাতার না হওয়ায় নিহত স্কুল ছাত্রের পরিবার, আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরাসহ হতাশায় ভুগছেন অভিভাবকমহল।

রোববার (১৭ জুলাই) শহীদ মিনার চত্তর, শহরের ভিক্টোরিয়া রোড, নিরালা মোড়, শহীদ স্মৃতি পৌর উদ্যানসহ গুরুত্বপূর্ণ প্রতিটি সড়কের দেয়াল, মার্কেট চত্তরে ওই পোস্টার দেখা গেছে।

টাঙ্গাইল জেলার সর্বস্তরের জনগণের ব্যানারে সৃষ্টি একাডেমির চেয়ারম্যান শরিফুল ইসলাম রিপনের ছবি সম্বলিত ছাপানো পোস্টারে সৃষ্টি একাডেমিক স্কুলের আবাসিক ভবনে পঞ্চম শ্রেণীর শিশু শিক্ষার্থী শিহাব মিয়ার উপর পাশবিক নির্যাতনের মাধ্যমে ন্যাক্কারজনক হত্যাকান্ডটি ভিন্নধারায় প্রবাহের সৃষ্টি একাডেমিক স্কুল কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা ও পৃষ্টপোষকতায় হত্যাকে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেওয়ার মিথ্যা ও ভিত্তিহীন নাটকীয়তার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানোসহ হত্যাকান্ডের সুষ্ঠু বিচারের মাধ্যমে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসির দাবি করা হয়েছে।

এছাড়াও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও ছড়িয়ে পরেছে ওই পোস্টার। ফেসবুকেও দোষীদের ফাঁসি দাবি করা হচ্ছে।
টাঙ্গাইল জেলা সংবাদ নামের এক ফেসবুক পেইজেও গেল ১ ঘন্টা আগে আল আমিন শিকদার হিমু নামের এক যুবকের পোস্ট দেখা গেছে সেখানে লেখা রয়েছে- আমি মৃত শিহাবের (ফুপাতো ভাই) বড় ভাই। সোনার বাংলাদেশ।

দশ বছরের শিশুকে নির্মম ভাবে হত্যা করা হলো এর কোনো বিচারই হলো না। টাকার বিনিময়ে সব বিক্রি হয়ে গেছে। আইন শৃঙ্খলাবাহিনী, জেলা প্রশাসন, এমপি, মন্ত্রী, সুশীল সমাজ, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, মানবাধিকার সংস্থা, সংবাদমাধ্যম এসব লোকদের লজ্জা হওয়া উচিত। বেঁচে থাকতে আমি অন্তত এদের সম্মান দিবো না। এরা রক্ষক না তো বক্ষক। সব কিছুর হিসেব দিতে হবে, হয় এ কালে না হয় পরকালে। যারা খুন করছে তারা যেমন খুনী, তেমনি যারা টাকা খেয়ে এ ঘটনাটি ধামাচাপা দিতেছে তারা ও সমান দোষী।

এতো প্রমাণ থাকা সত্তেও শিহাব হত্যার কেনো বিচার হচ্ছে না কেন? এই আন্দোলন থামবে না। কারণ আমি চাই না আমার পরিবারের মতো আর কোনো পরিবার তাদের সন্তানকে হারিয়ে বিচারের জন্য রাস্তায় রাস্তায় ঘুরুক। আর এই হত্যাকান্ডের সর্বোচ্চ শাস্তি চাই যাতে করে সমাজে আর কোনো নরপশু কোনো মায়ের বুক খালি করতে না পারে। আবারো রাস্তায় নেমে আন্দোলন করা হবে।

যত দিন না সঠিক বিচার হচ্ছে আমি তো আন্দোলন করবোই, সাথে সবার অংশ গ্রহণ আশা করছি। আমার একজনের আন্দোলনে কিচ্ছু হবে না, কিন্তু সবাই একত্র হলে শিহাব হয়তো ওর বিচার পাবে। ঈদের বন্ধের কারণে সব থেমে গেছে কিন্তু খুব তাড়াতাড়ি আবার আন্দোলন করা হবে। সবাই দয়া করে আসবেন।

শিশুদের জন্য ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মুঈদ হাসান তরিৎ বলেন, আমরা খুব শীঘ্রই শিহাব হত্যার বিচার নিয়ে আন্দোলনে নামবো।

তরিৎ বলেন, শিহাব হত্যার বিচার দাবি করে দেয়ালে দেয়ালে পোস্টার লাগানো হয়েছে বলে শুনেছি। আন্দোলনরত আমরা সকলেই শিক্ষার্থী, পোস্টার ছাপানোর মত এত টাকা খরচ করা আমাদের পক্ষে সম্ভব নয়। শহর জুড়ে পোস্টার লাগানো কি অন্য কোন সংগঠনের আন্দোলন নাকি আমাদের আন্দোলন বন্ধ করার ষড়যন্ত্র। এ নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন তিনি।

এ বিষয়ে টাঙ্গাইল সদর মডেল থানার ওসি (তদন্ত) ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. হাবিবুর রহমান জানান, শহরের বিভিন্ন দেয়ালে দেয়ালে শিহাব হত্যার বিচার দাবিতে পোস্টার লাগানো হয়েছে বলে শুনেছি। এটা আন্দোলনের একটি প্রক্রিয়া, এটা চলবেই। ওই স্কুল ছাত্র হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটনে তদন্ত চলমান রয়েছে। আশা করছি দ্রুতই এর রহস্য উম্মোচন হবে।

উল্লেখ্য, গত ২০ জুন শহরের বিশ্বাস বেতকা সুপারি বাগান এলাকার সৃষ্টি একাডেমিক স্কুলের ছাত্রাবাস থেকে পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্র শিহাবের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে ছাত্রাবাসের আবাসিক শিক্ষকরা তার মরদেহ টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। নিহত শিহাব সখীপুর উপজেলার বেড়বাড়ী গ্রামের প্রবাসী ইলিয়াস হোসেনের ছেলে। শিহাবকে চার মাস আগে সৃষ্টি একাডেমিক স্কুলে ভর্তি করা হয়। সে সুপারি বাগান এলাকায় ওই স্কুলের একটি ছাত্রাবাসে সপ্তম তলায় থাকতো।

ওইদিনই শিহাবের মা আছমা আক্তার বাদি হয়ে আবু বক্করকে প্রধান আসামী করে ৬ জন শিক্ষকের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করেন। মামলায় অজ্ঞাত আরও সাত আট জনকে আসামী করা হয়েছে।

টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে মর্গে শিহাবের ময়নাতদন্ত হয়। শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগে সহকারী অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম মিয়ার নেতৃত্বে তিন সদস্যের চিকিৎসক দল শিহাবের ময়না তদন্ত করেন। পরে টাঙ্গাইলের সিভিল সার্জন আবুল ফজল মো. সাহাবুদ্দিন খান ময়না তদন্তের প্রতিবেদন পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে পাঠান। শিহাবকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে তদন্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

শিহাবের মরদেহ উদ্ধারের পর মৃত্যুর কারণ ও হত্যায় জড়িতদের শাস্তির দাবিতে টাঙ্গাইল এবং ঢাকায় মানববন্ধন এবং বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। মঙ্গলবার (২৮ জুন) বিকেলে শুনানী শেষে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মো. শামসুল আলম ওই মামলায় স্কুলের আবাসিক শিক্ষক আবু বক্করের ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

৩ জুলাই গ্রেপ্তাতারকৃত স্কুলের আবাসিক শিক্ষক আবু বক্করকে ৫ দিনের রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠানো হয়। এরপর থেকে ধারাবাহিক শিহাব হত্যার বিচারের দাবিতে প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধন করেছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা।


পাঠকের মতামত

-মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

নিউজটি শেয়ার করুন

কপিরাইট © ২০২২ একতার কণ্ঠ এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।