গোপালপুরে ইউপি নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেতে নাসির খানের গণসংযোগ


০৮:৩১ পিএম, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১
গোপালপুরে ইউপি নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেতে নাসির খানের গণসংযোগ - Ekotar Kantho

একতার কষ্ঠ ডেস্কঃ টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার হেমনগর ইউপি নির্বাচনে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন পেতে মো. মাসুদ খান নাসির চার বছর ধরে অবিরাম গণসংযোগ করছেন। তিনি হেমনগর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের দীর্ঘদিনের সাবেক সভাপতি মরহুম বীরমুক্তিযোদ্ধা মতিয়ার রহমান খানের ছেলে ও ইউনিয়ন আ’লীগের সদস্য।

হেমনগর ইউনিয়নের শাখারিয়া মহিলা আ’লীগের সভাপতি নিলুফার ইয়াসমিন, ৬নং ওয়ার্ড আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহাদত হোসেন, ৮নং ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক মো. কামরুল হক খান কিসলু, নলীন বাজারের ব্যবসায়ী রবিউল ইসলাম রুবেল, নারুচি গ্রামের মো. হাবিবুর রহমান, মো. পিন্টু মিয়া, বেলুয়া গ্রামের হাসিনুর বসনী, বানীপাড়া গ্রামের মো. নিরব হোসেন, নারুচী গ্রামের মো. আইয়ুব আলী, শিমলাপাড়া গ্রামের মোছা. আছিয়া খাতুন সহ অনেকেই জানান, মো. মাসুদ খান নাসির বিগত চার দলীয় জোট সরকারের সময় ব্যাপক হয়রানী ও নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। তার বাবা মরহুম মতিয়ার রহমান হেমনগর ইউনিয়নবাসীকে সব ধরণের সমস্যায় ছায়া দিয়ে আগলে রেখেছেন।

উত্তরাধিকার হিসেবে মো. মাসুদ খান নাসিরও বাবার অনুকরণে জনসেবা করে এলাকার মানুষের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন। করোনাকালে তিনি ইউনিয়নের ১৯টি গ্রামের সাধারণ মানুষকে খাদ্য ও নগদ অর্থ সহায়তা দিয়ে সাহস দিয়েছেন। স্থানীয় মসজিদ, মাদ্রাসা, বিদ্যালয় ও মন্দিরে তিনি নিয়মিত আর্থিক সহায়তা দিয়ে থাকেন।

হেমনগর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের আ’লীগের সহ-সভাপতি হাবিবুর রহমান মিয়া, আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুল ইসলাম রিন্টু সহ স্থানীয় আ’লীগের নেতাকর্মীরা জানান, গোপালপুর উপজেলা ৭১’র ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো. মাসুদ খান নাসির একজন সৎ, পরোপকারী, সজ্জন ও প্রতিবাদী ব্যক্তি হিসেবে এলাকায় পরিচিত।

স্থানীয় সালিশ-বিচারে মাতব্বরদের আর্থিক সুবিধা গ্রহনের তিনি ঘোর বিরোধী। হেমনগর ইউনিয়নের তিনি একজন সফল ব্যবসায়ী ও জনপ্রিয় ব্যক্তি। আগামি ইউপি নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন দিতে একজন ত্যাগী ও তৃণমূলের নেতা হিসেবে মো. মাসুদ খান নাসিরকে আওয়ামীলীগের হাই কমান্ড বিবেচনা করবে বলে তারা আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

নলীন বাজার সিএনজি ও ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মো. মাসুদ খান নাসির জানান, তিনি পারিবারিকভাবে আওয়ামী রাজনীতির সাথে জড়িত। ১৯৯০ সালে তিনি হেমনগর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের নেতা হিসেবে রাজনীতিতে সাংগঠনিক কার্যক্রম শুরু করেন। বাবার কাছ থেকে পাওয়া জনসেবাকে তিনি ব্রত হিসেবে গ্রহন করে এলাকার মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন। এলাকার সাধারণ মানুষের ব্যাপক আগ্রহে তিনি আসন্ন ইউপি নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশা করেন।


নিউজটি শেয়ার করুন

কপিরাইট © ২০২২ একতার কণ্ঠ এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।