টাঙ্গাইলে ১৬ ঘণ্টায় ট্রেন-বাস-ট্রাক কেড়ে নিলো ৬ জনের প্রাণ


০৮:২০ পিএম, ৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
টাঙ্গাইলে ১৬ ঘণ্টায় ট্রেন-বাস-ট্রাক কেড়ে নিলো  ৬ জনের প্রাণ - Ekotar Kantho
ঘাটাইল উপজেলার সালেংকা মোড়ে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত টিটু-খাঁর লাশ

একতার কণ্ঠঃ শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে ঢাকাগামী হানিফ পরিবহন নামে একটি বাসের ধাক্কায় অটোচালকসহ দুজন নিহতের ঘটনা ঘটেছে।

অপরদিকে, টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ আঞ্চলিক মহাসড়কে টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার সালেংকা মোড়ে শনিবার সকালে মাটিবোঝাই একটি ড্রামট্রাকের সঙ্গে একটি অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে টিটু-খাঁ (৬০) নামে আরও একজনের নিহতের ঘটনা ঘটেছে।

এছাড়াও শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) রাতে বঙ্গবন্ধু সেতু-ঢাকা মহাসড়কের পাশে রেললাইনে হাঁটাহাঁটি করতে গিয়ে ট্রেনে কাটা পড়ে বাবা-ছেলেসহ মারা গেছেন ৩ জন। এ নিয়ে জেলায় প্রায় ১৬ ঘণ্টার ব্যবধানে মোট ৬ জনের প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে।

এরমধ্যে শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) বেলা সাড়ে ১২টার দিকে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার সল্লা এলাকায় ১৩ নং ব্রিজের কাছে হানিফ পরিবহনের একটি বাসের ধাক্কায় ব্যাটারিচালিত অটোভ্যানের চালকসহ দুজন নিহত হয়।

তারা হলেন- উপজেলার গোহালিয়াবাড়ী ইউনিয়নের গোহালিয়াবাড়ী গ্রামের মৃত শুক্কুর আলীর ছেলে আব্দুস ছাত্তার (৩৫) এবং একই ইউনিয়নের কুর্শাবেনু গ্রামের মৃত আব্দুল হকের ছেলে আব্দুল মমিন (৩৬)। এদের মধ্যে আব্দুস ছাত্তার অটোভ্যান চালক ও আব্দুল মমিন অটোভ্যানের যাত্রী ছিল।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ঢাকাগামী হানিফ পরিবহন নামে একটি বাসকে অজ্ঞাতনামা একটি গাড়ি ধাক্কা দেয়। এর ফলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে হানিফ পরিবহনটি সামনে থাকা অটোভ্যানটিকে ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলে অটোভ্যান চালক ও তার যাত্রী মারা যায়। এ খবর পেয়ে নিহতদের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নাজমুল হাসান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে এবং বাসটিকেও জব্দ করা হয়েছে। আইনি প্রক্রিয়া শেষে নিহত দুজনের মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

একই দিন সকালে টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ আঞ্চলিক মহাসড়কের টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার সালেংকা মোড়ে শনিবার সকালে মাটিবোঝাই একটি ড্রামট্রাকের (ঢাকা মেট্রো ট-১৮-৬৩১৮) সঙ্গে একটি অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে টিটু খাঁ নিহত ও অপর দুইজন আহত হয়।

নিহত টিটু-খাঁ ঘাটাইলের লোকের পাড়া ইউনিয়নের মৃত হিটলার খাঁর ছেলে।

ঘাটাইল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ আবু ছালাম মিয়া জানান, ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। আইনি প্রক্রিয়া শেষে মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

অপরদিকে, শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) রাত পৌনে ৯টার দিকে কালিহাতী উপজেলার ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের আনালিয়াবাড়ী এলাকায় রেললাইনে হাঁটতে গিয়ে চিলাহাটি এক্সপ্রেস ট্রেনে কাটা পড়ে বাবা ও তার শিশু ছেলেসহ তিনজনের প্রাণহানির ঘটনা ঘটে।

বাবা-ছেলেসহ নিহতরা হলেন- নাটোর বড়াই গ্রামের আলাউদ্দিনের ছেলে রতন (৩৫) ও তার ছেলে সানি (৬) এবং অপর ব্যক্তির নাম শরীফ (৩৪)। তিনি রাজশাহী বেল পুকুর এলাকার আলম মন্ডলের ছেলে।

স্থানীয় ও রেলওয়ে সূত্রে জানা যায়, রাজশাহীগামী দূরপাল্লার একটি বাস আনালিয়াবাড়ী এলাকায় রাতে হঠাৎ বিকল হয়। পরে বাসটি মেরামত করার সময় কিছু যাত্রী মহাসড়কের পাশে হাঁটাহাঁটি করছিল। এ সময় নীলফামারীর চিলাহাটিগামী চিলাহাটি এক্সপ্রেস নামের একটি ট্রেনে কাটা পড়ে শিশুসহ তিনজনের মৃত্যু হয়। আহত হন আরও এক নারী। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে।

বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব রেলস্টেশনের ইনচার্জ রেজাউল করিম জানান, ট্রেনে কাটা পড়ে নিহত তিনজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে দুজন সম্পর্কে বাবা-ছেলে। এদের মধ্যে বাবার নাম রতন ও ছেলের নাম সানি। তাদের বাড়ি নাটোরের বড়াই গ্রামে এবং অপর এক ব্যক্তির নাম শরীফ। তার বাড়ি রাজশাহীর বেল পুকুর এলাকায়। তারা নীলফামারীর চিলাহাটিগামী চিলাহাটি এক্সপ্রেস ট্রেনে কাটা পড়ে মারা যায়।


নিউজটি শেয়ার করুন

কপিরাইট © ২০২২ একতার কণ্ঠ এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।